রফিক এই যুগে খেললে সাকিবের মতো সুপারস্টার হতো – আকরাম

ফিচার বাংলাদেশ ক্রিকেট

বাংলাদেশ ক্রিকেটের এই যুগে মোহাম্মদ রফিক খেললে সাকিব আল হাসানের মতো সুপারস্টার হতো! আর এমনটা মনে করেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক আকরাম খান। সম্প্রতি তামিমের লাইভ আড্ডায় এমন মন্তব্য করেন বর্তমান বোর্ড পরিচালক।

কেনিয়ার বিপক্ষে ১৯৯৭ সালের আইসিসি ট্রফির ফাইনালে বিশেষজ্ঞ তিন নম্বর ব্যাটসম্যান ছিল না বাংলাদেশের। সেই সময় মিনহাজুল আবেদীন নান্নুকে তিন নম্বরে খেলতে হয় এবং আব্দদুর রাজ্জাককে করতে হয় ওপেনিং। সেই সময় বৃষ্টি আইনে কেনিয়ার দেয়া ১৬৬ রানের লক্ষ্যে তাড়া করতে নেমে রফিকের ১৫ বলে ২৬ রানের ইনিংসে ট্রফি জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। মূলত সেই জন্যে এমন মন্তব্য করেছেন আকরাম খান।

তিনি বলেন, “আইসিসিতে (ট্রফিতে) আমরা তিন নম্বরে কোনো প্লেয়ারকে সেট করতে পারছিলাম না। এই কথাটা প্রথম আসছে নান্নু ভাইয়ের থেকে। তিনি তিন নম্বরে খেলতে চেয়েছিলেন। আমি বললাম ভালো বলেছেন।”

“আমি লিপু ভাই আর গর্ডনের (কোচ) সাথে কথা বলি। রফিক কিন্তু অনেক ট্যালেন্টেড প্লেয়ার। সে যদি এই যুগের হতো সাকিবের মতো সুপারস্টার হতো। আমি বলেছিলাম ও (নান্নু) নাম্বার থ্রিতে গেলে ভালো হয়। তারপর নান্নু ভাই নাম্বার থ্রি গেলেন। দুর্জয় আর রফিক ওপেন করেছিল।”– যোগ করেন আকরাম।

তখন কেনিয়া ছিল শক্তিশালী প্রতিপক্ষ। তাদের কয়েকটি খেলোয়াড় ছিল বিশ্ব মানের। আর বাংলাদেশের সবাই ভালো খেলতো সবাই ছিলো অলরাউন্ডার। তাই ব্যাটিং অর্ডার পরিবর্তন করেছিল বাংলাদেশ। আকরাম খান আরও বলেন, “তখন কেনিয়া আমাদের চেয়ে ভালো দল ছিল দুই দিক দিয়ে। এক ওদের ফিটনেস আমাদের চেয়ে ভালো ছিল। দুই ওদের কাছে তিন চারটা প্লেয়ার ছিল বিশ্ব মানের।

“ওদের পাঁচ ছয়টা কোয়ালিটি প্লেয়ার ছিল। ওরা আগে ব্যাটিং করে ভালোই রান করেছিল। আমরা যেহেতু শুরু থেকেই ভালো খেলছিলাম। যাকে আমরা যেখানে ব্যাটিং অর্ডার দিচ্ছি কেউ নিজের কথা চিন্তা করছে না। সবাই কিন্তু টিমের কথাই চিন্তা করতো।”– যোগ করেন তিনি।

প্রসঙ্গত যে, বাংলাদেশের হয়ে ৩৩ টেস্ট খেলে ব্যাট হাতে ১০৫৯ রান করেন রফিক। সর্বোচ্চ ইনিংস ১১১ রান। এছাড়া বল হাতে ১০০ উইকেট শিকার করেছেন তিনি। পাঁচ উইকেট ৭ বার এবং চার উইকেট ৩ বার নিয়েছেন। এছাড়া ১২৫ ওয়ানডে খেলে এই অলরাউন্ডার রান করেন ১১৯১। সর্বোচ্চ ইনিংস ৭৭ রান। সেই সাথে বল হাতে নিয়েছেন ১২৫ উইকেট। ৩ বার চার উইকেট ও ১ বার পাঁচ উইকেট নিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *