এক শর্তে সাব্বিরকে ‘ছক্কা মারার ব্যাট’ উপহার দেন ক্যাপ্টেন কুল ধোনি

বাংলাদেশ ক্রিকেট

ক্রিকেট ইতিহাসে অন্যতম সেরা উইকেটরক্ষক হিসেবে নাম লেখা থাকবে ভারতের মহেন্দ্র সিং ধোনির। উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে দলকে নেতৃত্ব দেয়ার কথা না হয় বাদই দিলাম, কিন্তু গ্লাভস হাতে উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে ধোনির ক্ষিপ্রতা অন্য যে কাউকেই হার মানিয়ে গেছে। তার হাত থেকে স্ট্যাম্পড হওয়া থেকে বেঁচেছেন, এমন নজির খুবই কম রয়েছে।

দু’একটি বিরল ঘটনা যাও আছে, তার মধ্যে একটি হচ্ছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমান। তবে সাব্বিরের দুটি অভিজ্ঞতাই আছে। ধোনির জাতে স্ট্যাম্পড হওয়া এবং স্ট্যাম্পড হওয়ার হাত থেকে বেঁচে যাওয়া দুটিই।

সাব্বির রহমানের সঙ্গে যে ধোনির এত সখ্য, তা অনেকেরই অজানা। বিরল হলেও দারুণ বন্ধুত্ব দু’জনের মধ্যে। এমনকি ধোনির কাছ থেকে ব্যাটও চেয়ে নিয়েছিলেন সাব্বির। বাংলাদেশের একটি মিডিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎকারে নিজেই এমনটা জানালেন সাব্বির।

২০১৬ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সাব্বির রহমানকে স্ট্যাম্প করে ম্যাচের রং বদলে দিয়েছিলেন ধোনি। কিন্তু ২০১৯ বিশ্বকাপে আবারও একই চিত্রনাট্যের অবতারণা হয়। এবার ইয়ুজবেন্দ্র চাহালের বলে সাব্বিরকে স্ট্যাম্প করার সুযোগ পেয়েছিলেন ধোনি।

কিন্তু, সে যাত্রায় বেঁচে যান সাব্বির। ধোনি উইকেট ভেঙে দেওয়ার আগেই সাব্বির ঢুকে পড়েন ক্রিজে। জীবন ফিরে পাওয়ার পরে ধোনির উদ্দেশে সেদিন সাব্বির বলেছিলেন, ‘আজ কিন্তু পারলে না।’ ২০১৯ বিশ্বকাপে বার্মিংহ্যামে ঘটেছিল এই ঘটনা।

সেই ঘটনার উল্লেখ করে বাংলাদেশের এই তারকা বলেন, ‘বেঙ্গালুরুতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সময়ে ধোনি আমাকে স্ট্যাম্প করেছিল। গত বছরের বিশ্বকাপেও আমাকে স্ট্যাম্প করার সুযোগ পেয়েছিল ধোনি। আমি স্লাইড করে ক্রিজে ঢুকে যাই। ফলে ধোনি আর আউট করতে পারেনি আমাকে।’

ভারতের সাবেক অধিনায়ক সম্পর্কে বলতে গিয়ে সাব্বির বলেন, ‘আমি একবার ধোনিকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম, তোমার ব্যাটের রহস্য কী? আমরা ছক্কা মারতে নাজেহাল হয়ে যাই। অথচ তুমি মারলেই তা ছক্কা হয়ে যায়। জবাবে ধোনি বলেছিল, পুরোটাই আত্মবিশ্বাস।’

ভারতের বিরুদ্ধে নামার আগে ধোনির কাছ থেকে ব্যাট চেয়েছিলেন সাব্বির। ধোনি তাকে ব্যাট দিতে রাজিও হয়ে গিয়েছিলেন; কিন্তু শর্ত ছিল একটাই। সাবির বলেন, ‘ধোনি বলেছিল, তোমাকে আমি ব্যাট দিতে পারি; কিন্তু সেই ব্যাট নিয়ে তুমি ভারতের বিরুদ্ধে নামতে পারবে না। অন্য কোনও ম্যাচে তুমি নামতে পারো।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *