লজ্জাজনক এই ৭ রেকর্ড লেখা থাকবে ধোনির নামের পাশে

ক্রিকেট ফিচার

সর্বশক্তিমানেরও ভুল হয়ে যায় কখনও। ঠিক যেমনটা হয়েছিল মহেন্দ্র সিং ধোনির সঙ্গে। ভারতীয় ক্রিকেটের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক তিনি। নামের পাশে রয়েছে একাধিক রেকর্ড। তিনিই প্রথম কোনও ভারতীয় অধিনায়ক, যাঁর টুপিতে রয়েছে তিন-তিনটে আইসিসি ট্রফির পালক। কিন্তু এই ধোনিই বহুবার ব্যর্থ হয়েছেন দলকে বাঁচাতে। বহু বার নিজে মুখ থুবড়ে পড়েছেন। কখনও রান পাননি। কখনও আবার খুবই দরকারি সময়ে উল্লেখযোগ্য ক্যাচও মিস করে ফেলেছেন ধোনি। কখনও আবার দলে এমন কাউকে চান্স দিয়েছেন, যা কোনও কাজেই আসেনি। ভারতের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক সেই মহেন্দ্র সিং ধোনির নামের পাশেও লেখা রয়েছে লজ্জাজনক কিছু রেকর্ড।

চলুন মাহেন্দ্র সিং ধোনির এমন ৭ টি লজ্জাজনক রেকর্ড সম্পর্কে আজকে জানানো যাক।

​১। টেস্টে বিদেশে সবথেকে বেশি হার –

মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বেই টেস্টে বিদেশের মাটিতে সবথেকে বেশি বার হেরেছে ভারত। ধোনির নেতৃত্বে ভারত টেস্ট ম্যাচ জিতেছে ২৭টি। অন্যদিকে ভারতীয় দল এম এস ধোনির নেতৃত্বে টেস্টে হেরেছে ১৮টি ম্যাচে। যার মধ্যে ১৫টি টেস্ট ম্যাচই ভারত হেরেছে বিদেশের মাটিতে। কপিল দেব, সুনীল গাভাসকার, মহম্মদ আজহারউদ্দিন, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, রাহুল দ্রাবিড় এমনকী আজকের বিরাট কোহলির নেতৃত্বেও এই লজ্জাজনক অবস্থা দেখা যায়নি ভারতীয় দলের।

​২। পরপর ৪টি টেস্ট সিরিজে হার –

ধোনির নেতৃত্বে একদিনের ম্যাচে জনপ্রিয়তার শিখরে উঠেছিল ভারতীয় দল। ধোনি তা ধরেও রেখেছিলেন বহু দিন। টেস্টেও একবার সেরা হয়ে দেখিয়েছিলেন। কিন্তু সেই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারেননি ধোনি। ভারতের অনেক অধিনায়কই টানা টেস্ট ম্যাচ হেরেছেন। বিরাট কোহলি যাদের অন্যতম। কিন্তু লাগাতার টেস্ট সিরিজ হারার নজির দেখিয়েছেন একমাত্র ধোনি। তাঁর নেতৃত্বে ভারতীয় দল পরপর চারটি টেস্ট সিরিজ হেরেছে।

৩। ​বিদেশের মাটিতে সেঞ্চুরি নেই –

গোটা ক্রিকেট কেরিয়ারে এখনও অবধি মোট ১৬টি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। তার মধ্যে ওয়ানডেতে ১০টি সেঞ্চুরি করেছেন আর টেস্টে ধোনির সেঞ্চুরি সংখ্যা ৬টি। তবে আজ অবধি বিদেশের মাটিতে একটিও সেঞ্চুরি করতে পারেননি ধোনি। যেকটি সেঞ্চুরি তিনি করেছেন তার সবকটিই এশিয়া মহাদেশে। এশিয়ার বাইরে কোনও মহাদেশে সেঞ্চুরি নেই তাঁর।

৪। ১০৮ বলে হাফ সেঞ্চুরি –

ওয়ানডে ম্যাচে খুব ধীর গতিতে খেলে যে কয়েকজন ভারতীয় ক্রিকেটার অর্ধশতক করেছেন, ধোনি রয়েছেন তাঁদের দুই নম্বরে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে একটি ম্যাচে এম এস ধোনি ১০৮ বল খেলে তাঁর হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন। জেনে রাখা ভালো, সেই ম্যাচে দুর্ধর্ষ ক্যারিবিয়ান বোলিংয়ের সামনে মুখ তুলে দাঁড়াতেই পারছিল না ভারতীয় দল। পরিস্থিতির সামাল দিতে গিয়েই এমনতর করুণ পরিস্থিতি হয়েছিল ধোনির। তবে এর আগে এই রেকর্ড ছিল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের নামে। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ১০৩ বলে হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি।

৫। ​১০০ বল খেলেও কোনও বাউন্ডারি নেই –

তাঁকে বলা হয় দুনিয়ার সেরা ফিনিশার। ছক্কা হাঁকানোর দিক থেকেও দ্বিতীয় কাউকে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। ছক্কা মারতে তিনি এতটাই পারদর্শি যে, ম্যাচ অবধি জেতান ছক্কা মেরেই। ঠিক যেমনটা ২০১১ সালের বিশ্বকাপে করে দেখিয়েছিলেন ধোনি। কিন্তু এহেন ধোনিই আবার এমনই ঢিমেতালে কখনও খেলেছেন যে, মানুষ বিরক্ত হয়ে গিয়েছেন। ২০১৭ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে একটি ম্যাচে ১০০ বল অবধি খেলে ফেলেছেন। অথচ কোনও চার নেই। নেই কোনও ছক্কাও।

৬। টি-টোয়েন্টিতে প্রথম ম্যাচেই শূন্য –

টি-টোয়েন্টিতে যে ম্যাচটি দিয়ে অভিষেক হয়েছিল মহেন্দ্র সিং ধোনির, সেই ম্যাচেই তিনি শূন্য রান করে আউট হয়ে গিয়েছিলেন। ২০০৬ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি খেলেছিল ভারত। কিন্তু জীবনের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচেই দর্শকদের নিরাশ করেছিলেন মারকুটে ধোনি। কোনও রান না করে প্যাভিলিয়নে ফিরে গিয়েছিলেন।

​৭। ওয়ান ডে ডেবিউতেও শূন্য –

২০০৪ সালে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল মহেন্দ্র সিং ধোনির। কিন্তু ধোনি প্রথম ম্যাচেই হতাশ করেছিলেন। পরের দিকে জাঁদরেল ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজেকে তুলে ধরলেও প্রথম ম্যাচে শূন্য রানে আউট হয়েছিলেন ধোনি। এই নিয়ে তাঁর আক্ষেপও ছিল বিস্তর। বহু বার বেশ কিছু সাক্ষাৎকারে ধোনিকে সেই কথা বলতেও শোনা গিয়েছে। তবে বিশ্বকাপ জয় আর তারপরে বেতাজ বাদশার মতো অধিনায়কত্ব সবই ভুলিয়ে দিয়েছিল মাহিকে।

সূত্র: এই সময়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *