চরম অর্থ সংকটে ক্রিকেটাররা; বিসিবির কাছে চাইলেন টাকা ধার!

বাংলাদেশ ক্রিকেট

জাতীয় দলের বাইরের সকল ক্রিকেটার রুটি – রুজির যে অর্থ ঘরোয়া লীগ থেকে আসে সেই লিগ প্রায় বন্ধ পাঁচ মাস থেকে। এই দীর্ঘ সময়ে অনেকে অনেকভবে সহায়তা পেলেও সেটা পরিমিত নয়। অনেক দেশের ক্রিকেট শুরু হয়ে দেখে অনেকেই ভেবেছিলেন ঈদ পর হয়ত শুরু হবে ঘরোয়ক লীগ। কিন্তু বিসিবি বস সরাসরিই জানিয়ে দিয়েছেন, দেশের এমন পরিস্থিতিতে ঘরোয়া লীগ শুরু করা সম্ভব নয়।

ঘরোয়া ক্রিকেটারদের উপার্জনের কেন্দ্রবিন্দু ঘরোয়া
লীগ চালু না হওয়াতে বিপদে পড়েছেন সবাই। জীবন ধারণ যতদিন যাচ্ছে তত কঠিন হয়ে যাচ্ছে ঘরোয়া ক্রিকেটারদের। এমতাবস্থায় টিকে থাকতে বিসিবির কাছে অর্থ ধার নিতেও রাজি তারা। সম্প্রতি বেসরকারি টেলিভিশন সময় টিভির এক প্রতিবেদনে এমনই তথ্য উঠে এসেছে।

১২০ জন ক্রিকেটারকে বিসিবি মাসিক ৩০ হাজার টাকা করে সহায়তা দিচ্ছে ঠিকই। কিন্তু, ডিপিএলের ১২ ক্লাবের একটা বড় অংশের আয়ের পথই যে বন্ধ। করোনাভাইরাস পরিস্থিতির বাস্তবতা মানলেও, নিরুপায় হয়েই লিগ শুরুর বিষয়টি বিবেচনা করতে বোর্ডকে অনুরোধ করেছেন তারা।

ঘরোয়া ক্রিকেটের রেকর্ড রান সংগ্রাহক তুষার ইমরান এ ব্যাপারে বলেন, ‘সিসিডিএমের কিন্তু একটা নির্দেশনা ছিল যে প্রিমিয়ার লিগ শুরুর আগেই খেলোয়াড়দেরকে ৫০ শতাংশ টাকা পরিশোধ করতে হবে। ডিপিএলের ১২টা দলের মধ্যে ১১টা দল ২০ থেকে ৩০ ভাগ টাকা পরিশোধ করেছে। তবে একটা দল কিন্তু কোন টাকাই দেয়নি ক্রিকেটারদেরকে। সেটা হচ্ছে ব্রাদার্স ইউনিয়ন। যেহেতু বিসিবি বলেছে প্লেয়ারদেরকে আর্থিক সহায়তা দেয়া হবে। সেহেতু আমাদের দাবি থাকবে ক্রিকেট বোর্ডের কাছে, সিসিডিএমের যে নির্দেশনা ছিল ৫০ শতাংশ টাকা পরিশোধ করতে হবে, সেই টাকাটা যেন বিসিবি আমাদেরকে দেয় আপাতত লোন হিসেবে। পরবর্তীতে ক্লাব আমাদেরকে টাকাটা দিলে আমরা সেটা বিসিবিকে পরিশোধ করে দিবো। ’

তিনি আরও বলেন, ‘ধীরে ধীরে সবগুলো দেশই ঘরোয়া ক্রিকেট ফেরানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে। এখন ক্লাবগুলো কিন্তু রাজি হবে না ডিপিএল খেলতে কারণ বাংলাদেশ টিমের অনেকে এখন খেলতে পারবে না। কারণ সামনে জাতীয় দলের শ্রীলঙ্কা সফর আছে। তবে সফর শেষে আবারো স্বাস্থ্যবিধি মেনে খেলা শুরু করা যেতে পারে। আমাদেরও দাবি থাকবে, ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ দিয়ে যেন আবারো ক্রিকেট মাঠে গড়ায়। সেটি হলে আমাদের জন্য খুব ভালো হয়।’

আরেক তারকা ক্রিকেটার মোহাম্মদ আশরাফুল বলেন, ‘ঢাকা প্রিমিয়ার লিগকে কেন্দ্র করে ক্রিকেটাররা সারা বছরের প্ল্যান করে থাকে। সেটি বন্ধ হয়ে গেলে সবাই বিপদে পড়বে সেটাই স্বাভাবিক।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *