ধোনির অবসরের কারণে আর খেলা দেখবেন না পাকিস্তানি ‘চাচা’

অন্যান্য খবর

গত শনিবার ১৫ (আগস্ট) আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন ভারতের দুই বার বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। আর তার অবসরের কারণে মাঠে গিয়ে আর খেলা দেখবেন না পাকিস্তানের বংশোদ্ভূত আমেরিকান প্রবাসী মোহাম্মদ বশির বোজাই। বশির চাচা বা শিকাগো চাচা নামে মাঠে তার পরিচিত রয়েছে।

পাকিস্তানকে সমর্থন দিলেও ধোনির তার পছন্দের ক্রিকেটার। তাইতো ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার ম্যাচ যেখানেই অনুষ্ঠিত হতো সেখানেই ছুটে যেতেন। গত বিশ্বকাপে পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যেকার ম্যাচ দেখেছেন ধোনি পাগল এই ভক্ত। মাঠে দুই দেশের পতাকা একত্রে করে সমর্থন জানাতেন বশির।

এমনকি ধোনির সাথেও দেখা করেছেন বশির। গত বিশ্বকাপে ভারত ও পাকিস্তানের ম্যাচ দেখতে টিকেটও ব্যবস্থা করেছিলেন ধোনি। শুধু যে গত বছর যে তা নয়, ২০১৫ বিশ্বকাপে ধোনির সাথে অবসরে যাওয়া সুরেশ রায়নার হাতে বশির চাচার জন্যে সানগ্লাসও পাঠিয়েছিলেন ধোনি। আর ধোনি পাগল সেই ভক্ত ধোনির বিদায়ের সাথে সাথে খেলা দেখাকে বিদায় জানালেন।

সম্প্রতি এক গণমাধ্যমকে সাক্ষাৎকারে বশির বলেন, “ধোনি অবসর নিয়ে ফেলেছেন আর আমিও। ওর না খেলার কারণে আমার মনে হয় না যে আমি এখন ক্রিকেট দেখার জন্য আবারও সফর করব। আমি ওকে ভালোবাসি আর বদলে ও আমাকে ভালোবাসা ফিরিয়ে দিয়েছে। সমস্ত মহান খেলোয়াড়দের একদিন অবসর নিতে হয়, কিন্তু ওর অবসর আমাকে হতাশ করে দিয়েছে। ও দুর্দান্ত ফেয়ারওয়েলের অধিকারী ছিল কিন্তু ও এর চেয়েও অনেক বড়ো কিছু।”

“কোভিড-১৯ মহামারীর পর সবকিছু স্বাভাবিক হলে আমি রাঁচিতে তার বাড়িতে যাব। ওকে ভবিষ্যতের শুভকামনা দেওয়ার জন্য আমি কম সে কম এটুকু তো করতে পারি। আমি রাম বাবুকেও (মোহালির অন্য এক ক্রিকেট ভক্ত) আসার জন্য বলব।”– যোগ করেন তিনি।

সেই সাথে ধোনির সেই মূহুর্তগুলোর স্মৃতিচারণ করে বশির আরও বলেন, “২০১৫ বিশ্বকাপের ঘটনা। সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে খেলা দেখছিলাম। প্রচন্ড রোদ ছিল। সেই সঙ্গে গরমও ছিলো বেশ। হঠাৎ সুরেশ রায়না আমার কাছে এসে একটি সানগ্লাস দিয়ে বলল, আমি নই, ধোনি ভাই পাঠিয়েছে। ‌আমি শুধু রায়নার দিকে তাকিয়ে হেসেছিলাম।”

“২০১৮ এশিয়া কাপ চলাকালীন ধোনি একদিন হোটেলের রুমে আমায় ডেকে পাঠিয়েছিল। ওর একটা জার্সি আমায় উপহার দিয়েছিল। আমার কাছে বিশেষ মুহূর্ত। আমাকে দুটি ব্যাটও উপহার দিয়েছিল মাহি। শুধু তাই নয়, আমার সঙ্গে দেখা করতে না পারলেও দলের সাপোর্ট স্টাফের হাতে আমার টিকিট পাঠিয়ে দিত।”– যোগ করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *