ইতিহাস গড়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের স্বপ্নের ফাইনালে পিএসজি

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ

নিজেদের ক্লাব ইতিহাসে প্রথমবারের মতো উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে উঠেছে পিএসজি। মঙ্গলবার রাতে প্রথম সেমিফাইনালে জার্মান দল লিপজিগকে ৩-০ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করে ফাইনালের টিকেট হাতে পেয়েছে প্যারিসিয়ানরা।

দুই দলের সামনেই সুযোগ ছিলো নিজেদের ক্লাব ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ইউরোপ শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ের ফাইনালে জায়গা করে নেয়ার। কিন্ত বলতে গেলে এক অভিজ্ঞতা না থাকার দরুন পিএসজির সাথও ঠিক পেরে উঠলো না জার্মান দল লিপজিগ।

আক্রমন-পাল্টা আক্রমনে ম্যাচের একেবারে শুরু থেকেই জমে ওঠে পিএসজি বনাম লিপজিগের মধ্যকার সেমিফাইনাল ম্যাচটি। যদিও গোলের সামনে ভালো সুযোগ যা পাওয়ার তা ওই পিএসজিই পেয়েছে।

ম্যাচের ৬ষ্ঠ মিনিটে প্রথম এগিয়ে যাওয়ার ভালো সুযোগ নষ্ট করেন পিএসজির সেরা তারকা নেইমার জুনিয়র। আটালান্টা ম্যাচের মতো এই ম্যাচেও গোলরক্ষককে একা পেয়েও বল জালে জড়াতে ব্যর্থ হন তিনি। তার নেওয়া শট পোস্টে লেগে বাইরে দিয়ে চলে যায়।

১ মিনিট পরই একবার বল জালে জড়ান এমবাপে। যদিও এমবাপের কাছে যাওয়ার আগে নেইমারের হ্যান্ডবল হওয়ার কারনে বাতিল হয় গোলটি।

ত্রয়োদশ মিনিটে অবশেষে এগিয়ে যায় পিএসজি। ডি মারিয়ার নেওয়া বাঁকানো ফ্রি কিককে কাজে লাগিয়ে দূর্দান্ত হেডে বল জালে জড়িয়ে পিএসজিকে এগিয়ে নেন ব্রাজিলিয়ান তারকা মারকুইনহোস।

৪২তম মিনিটে আবারও প্রতিপক্ষ গোলরক্ষকের ভুলের সুযোগ নিয়ে এগিয়ে যায় পিএসজি। নেইমারের ফ্লিক থেকে বল পেয়ে সহজেই লক্ষভেদ করেন আর্জেন্টাইন তারকা এঞ্জেল ডি মারিয়া।

প্রথমার্ধের শেষ মুহূর্তে ডি বক্সের মধ্যে ভালো আরেকটি সুযোগ পেয়ে যান নেইমার। যদিও এবারও ব্যর্থ হন তিনি। তার নেওয়া শট গোলরক্ষককে ফাঁকি দিলেও খুঁজে পায়নি জালের ঠিকানা।

৫৬তম মিনিটে বার্নাটের গোলে ব্যবধান আরও বাড়ায় পিএসজি। ৭০তম মিনিটে এমবাপের হেড অল্পের জন্য বাইরে দিয়ে চলে গেলে হালি পূরণ হয়নি পিএসজির।

৭৬তম মিনিটে আবারও দারুন একটি সুযোগ পান নেইমার। যদিও এবারও হতাশ করেন তিনি। ব্রাজিলিয়ান এই তারকা বলটি ঠিক মতো নিয়ন্ত্রণ না করতে পারলে এ যাত্রায় বেঁচে যায় জার্মান দল লিপজিগ।

বাকি সময়ও আর কোন গোল না হলে ৩-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে পিএসজি। সেই সাথে বাগিয়ে নেয় উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের স্বপ্নের ফাইনালের টিকেটও!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *