ভার্চ্যুয়াল বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জনপ্রিয় ক্রিকেট দল বাংলাদেশ!

ফিচার

সময়টা এখন অত্যাধুনিক যোগাযোগ প্রযুক্তির। স্মার্ট ডিভাইস ও ইন্টারনেট প্রযুক্তির সুবাদে আজ পৃথিবী এতো কাছাকাছি হয়ে গেছে যে, ফোনের অপরপ্রান্তে থাকা ব্যক্তিটি আপনার পাশের বাসায় আছেন না পৃথিবীর অন্য আরেক প্রান্তে বসে আছেন – সেটাও বোঝা যাচ্ছে না। এদিকে গত দশকের শুরুর দিক থেকে ক্রমশ জনপ্রিয় হয়ে ওঠা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো এক্ষেত্রে যেন আরেকটি নতুন মাত্রা যোগ করেছে। সর্বশেষ হিসাব মতে, পৃথিবীতে ৩৮০ কোটিরও বেশি মানুষ এখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো ব্যবহার করছেন। আর এসব প্লাটফর্মে স্বীকৃত প্রতিষ্ঠানের তৈরি করা পেজ বা এ্যাকাউন্টের সংখ্যাটাও স্বভাবত কয়েক কোটির ওপরে। তবে এসবের মধ্যে জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিষ্ঠান কিংবা ক্রীড়া ব্যক্তিত্বদের তৈরি করা পেজ বা এ্যাকাউন্টগুলো। যেখানে অন্যান্য জনপ্রিয় খেলাগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে উঠে এসেছে ক্রিকেটের নামও। বর্তমানে আইসিসির পাশাপাশি প্রায় প্রতিটি জাতীয় দলেরই রয়েছে সাজানো-গোছানো স্বীকৃত পেজ বা এ্যাকাউন্ট। তাদের মধ্যে আবার জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা পাঁচটি দলকে নিয়েই রইলো আজকের এই আয়োজন।

৫| ইংল্যান্ড

দুর্ভাগ্যক্রমে ক্রিকেটের জন্মভূমি ইংল্যান্ডকেই নেমে আসতে হয়েছে তালিকার পঞ্চম অবস্থানে। কেননা দেশটিতে এখনো জনপ্রিয় খেলার শীর্ষস্থানটি ধরে রেখেছে ফুটবল। এমনকি গেল বছর বিশ্বকাপ ফাইনালের আগে ইংলিশদের কাছে যখন তাদের প্রতিপক্ষের নাম জানতে চাওয়া হয়েছিল, তখন তাদের অনেকে ফ্রান্স, ইতালিসহ এমনসব দলের নাম উচ্চারণ করেছিলেন যারা এখনো ওয়ানডে স্ট্যাটাস পর্যন্ত পায়নি। তবে পরবর্তিতে ঘরের মাটিতে নাটকীয়ভাবে সর্বশেষ বিশ্বকাপের শিরোপা জয়ের পর থেকে পুরো বিশ্বজুড়ে ইংলিশদের নাম নতুন করে ছড়িয়ে পড়েছে। বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোয় তাদের মোট ফলোয়ার সংখ্যা ৬৮ লাখেরও বেশি। এরমধ্যে ফেসবুকে ৪৫ লাখ, ইনস্টাগ্রামে ১৪ লাখ ও টুইটারে ৮৯৫ হাজার মানুষ তাদের ফলো করেছেন।

৪| অস্ট্রেলিয়া

ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সফল দলটির নাম হচ্ছে অস্ট্রেলিয়া। এপর্যন্ত আয়োজিত বারোটি ওয়ানডে বিশ্বকাপের মধ্যে পাঁচবারেরই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তাঁরা। তবে ভার্চ্যুয়াল জনপ্রিয়তার দিক থেকে স্মিথ-ওয়ার্নাররা রয়েছেন চতুর্থ অবস্থানে। এর পিছনের কারণটিও ঠিক ইংল্যান্ডের মতোই। পরিসংখ্যান বলছে খেলা প্রিয় জাতি অস্ট্রেলিয়ানদের পছন্দের খেলাসমূহের তালিকায় ক্রিকেট রয়েছে অষ্টম স্থানে। আর বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার মোট অনুসারী সংখ্যা প্রায় ৮৯ লক্ষ। যারমধ্যে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম ও টুইটারের ফলোয়ার সংখ্যা যথাক্রমে ৬৬, ১২ ও ১১ লক্ষ জন।

৩| পাকিস্তান

অনলাইন জনপ্রিয়তার বিচারে বিশ্বের সেরা তিনটি ক্রিকেট দলই এসেছে আমাদের ভারতীয় উপমহাদেশ থেকে। যার মধ্যে তালিকার তৃতীয় স্থানে রয়েছে পাকিস্তান। যদিও দেশটির বড় অংশের জনগোষ্ঠীর ঘরেই এখনো ইন্টারনেট সংযোগ পৌঁছায়নি, তারপরও সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের ক্রিকেট দলের পেজ বা এ্যাকাউন্টগুলো বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। সর্বশেষ হিসাব অনুসারে বাবর আজমদেরকে ফেসবুকে ৭৪ লক্ষ, ইনস্টাগ্রামে ১১ লক্ষ ও টুইটারে মোট ২৬ লক্ষ জন অনুসরণ করেছেন। আর এই তিনটি সোশ্যাল মিডিয়ার মোট ফলোয়ার সংখ্যা হিসাব করলে যেটা দাঁড়ায় ১.১১ কোটি জনে।

২| বাংলাদেশ

হ্যাঁ, অনলাইন জনপ্রিয়তার দিক থেকে বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা দল হচ্ছে টাইগাররা। বিশেষ করে শুধুমাত্র ফেসবুকেই পাকিস্তানের মোট ফলোয়ারদের তুলনায় বেশি ভক্ত রয়েছে বাংলাদেশের। যা ক্রিকেট বিশ্বে টাইগারদের দারুণ উত্থানের বিষয়টিই প্রমাণ করছে। এই প্রতিবেদনটি লেখার আগ পর্যন্ত ফেসবুকে মাশরাফি-সাকিবদের অনুসারী সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১.২২ কোটি জনে। একইসঙ্গে ইনস্টাগ্রামে ১৬ লক্ষ ও টুইটারে আরো ২.৫ লক্ষ জন বাংলাদেশের জাতীয় দলকে ফলো করে রেখেছেন। সবমিলিয়ে যে সংখ্যাটা দাঁড়ায় প্রায় ১ কোটি ৬৩ লাখ জনে!

১| ভারত

এখানে অবাক হওয়ার কোনো সুযোগ নেই যখন জনপ্রিয়তার দিক থেকে ভারতীয়দের ক্রিকেট দলের প্রসঙ্গ আসে। ১৩৫.৩ কোটি জনসংখ্যার দেশকে প্রতিনিধিত্ব করা দলটি সবসময়ই বড়ধরনের সমর্থন পেয়ে থাকে। আর সোশ্যাল মিডিয়ার হিসাবেও দেখা যাচ্ছে, ভারতীয়দের ফ্যান-ফলোয়ার সংখ্যা অন্যদের তুলনায় বেশি। এরমধ্যে ফেসবুকে ২৮৬ লক্ষ, ইনস্টাগ্রামে ১২.২ লক্ষ ও টুইটারে মোট ১৩৪ লক্ষ বার ফলো করা হয়েছে কোহলিদেরকে। সবমিলিয়ে যে সংখ্যাটা দাঁড়ায় ৫.৪২ কোটিতে।

তবে মজার ব্যাপার হলো, এতো পরিমাণ ফ্যান ফলোয়ার থাকা সত্ত্বেও ভারতীয় জাতীয় দলকে দেশটির মোট জনসংখ্যার শতকরা মাত্র ৫ ভাগ মানুষই ফলো করেছেন। যেখানে বাংলাদেশকে প্রতি ১০০ জনের মধ্যে ১১ জনই ফলো করেছেন। সুতরাং শতকরা হিসাবে ভারতের তুলনায় অনলাইন জগতে টাইগারদের ভক্ত-সমর্থকদের সংখ্যা অনেক বেশি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *