ধোনিকে নিয়ে মজার দুই ঘটনা!

ফিচার

জীবনের নানা উত্থান-পতন পেরিয়ে ২০০৪ সালে বাংলাদেশ সফরের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের পদযাত্রার শুরু করেছিলেন মাহেন্দ্র সিং ধোনি। আর গত শনিবার এক ইনস্টাগ্রাম পোস্টের মাধ্যমে সেই পদচারণার ইতিরেখা টানলেন ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সফল এই অধিনায়ক। এদিকে ধোনির বিদায়ের পর স্টার স্পোর্টসের এক অনুষ্ঠানে প্রিয় সতীর্থকে নিয়ে দুইটি মজার ঘটনা সবার সঙ্গে ভাগাভাগি করে নিয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটের একসময়ের অতিপরিচিত মুখ ভিভিএসর লক্ষণ। ২০০৫ সালে ধোনি যখন শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলা এক টেস্টের মাধ্যমে লম্বা ফর্ম্যাটের ক্রিকেটে অভিষিক্ত হচ্ছিলেন, ততদিনে লক্ষণ নিজের দেশের অন্যতম প্রতিষ্ঠিত টেস্ট ব্যাটসম্যানে পরিণত হয়েছেন। পরবর্তিতে ধোনির নেতৃত্বে বেশকিছু ম্যাচ খেলার সৌভাগ্যও হয়েছিল তাঁর। সুতরাং রাঁচির খুব সাধারণ পরিবারের ছেলের ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম বরপুত্র হয়ে ওঠার গল্পটা খুব ভালো করেই জানেন লক্ষণ।

এরমধ্যে ধোনির টেস্ট ক্যারিয়ারের চতুর্থ ম্যাচের একটি ঘটনা দিয়েই শুরুটা করলেন তিনি। সেবার ফয়সালাবাদে পাকিস্তানি বোলারদের তুলোধুনো করে ১৪৮ রানের এক অনবদ্য ইনিংস খেলে সবার মন জয় করে নিয়েছিলেন তরুণ ধোনি। আর এই খুশিতে নাকি তিনি চিৎকার করে অবসর নিয়ে ফেলার কথাবার্তাও বলছিলেন ড্রেসিংরুমে। লক্ষণের ভাষায় সেদিনের বর্ণনাটা ছিল এরকম, ‘ধোনির দুটি মজার ঘটনা আমি কোনোদিন ভুলব না। একটি হলো পাকিস্তানের বিপক্ষে ফয়সালাবাদ টেস্টের সেঞ্চুরির পর। সেদিন সে ড্রেসিং রুমে ফিরেই চিৎকার করে বলছিল, “আমি এমএস ধোনি, (ক্রিকেট থেকে) অবসর ঘোষণা করছি। টেস্টে সেঞ্চুরি করে ফেলেছি, এই যথেষ্ট। আমার আর চাওয়া-পাওয়া নেই।” আমরা তো এটা শুনে একদম হতভম্ব হয়ে যাই। কিন্তু ধোনি এমন ধরনেরই ছিল।’

এরপরের ঘটনাটি ছিলো আরো চমকপ্রদ। তখন প্রথমবারের মতো টেস্ট ফর্ম্যাটের অধিনায়ক নির্বাচিত হয়েছিলেন ধোনি। এসময় নাগপুরে মাঠ থেকে টিম হোটেলে ফেরার সময় নাকি তিনি নিজেই টিম বাসটিকে ড্রাইভ করেছিলেন। এব্যাপারে লক্ষণ বলেন, ‘পরেরটি অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে নাগপুর টেস্টে। তখন সে ভারতের অধিনায়ক হয়ে গেছে। অনিল কুম্বলে দিল্লিতে দুই ম্যাচ আগেই (আগের ম্যাচে) অবসর নেয়। আমরা তখন মাঠ থেকে হোটেলে ফিরছি। ধোনি তখন বাস চালককে বলল পেছনের সিটে বসতে, তারপর সে বাস চালিয়ে নিল। ভারতের অধিনায়ক টিম বাস চালাচ্ছে, অদ্ভুত ব্যাপার। ও আসলে জীবনটা উপভোগ করতে জানে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *