ক্রিকেটকে বিদায় বলে দিলেন লঙ্কান ওপেনার থারাঙ্গা

ক্রিকেট

দীর্ঘদিন জাতীয় দলের বাইরে থাকার পর অবশেষে সব ধরনের ক্রিকেটটে বিদায় জানিয়ে দিলেন শ্রীলঙ্কা টেস্ট ক্রিকেট দলের সাবেক ওপেনার থারাঙ্গা পারানাভিতানা।

মহামারীর কারণে বিশ্বের অধিকাংশ ক্রিকেটার খেলার বাইরে থাকলেও মাঠ থেকেই বিদায় নেওয়ার সৌভাগ্য হয়েছে থারাঙ্গার। সোমবার (২৪ আগস্ট) নেগম্বো ক্রিকেট ক্লাব ও তামিল ইউনিয়ন ক্রিকেট অ্যান্ড অ্যাথলেটিক ক্লাবের হয়ে নিজের শেষ ম্যাচ খেলেন তিনি। ড্র হওয়া ম্যাচে অবশ্য ব্যাট হাতে আলো ছড়াতে পারেননি তামিল ইউনিয়নের অধিনায়ক।

ঘরোয়া ক্রিকেটে সিংহলিজ স্পোর্টস ক্লাবের হয়ে দুর্দান্ত পারফর্ম্যান্স দেখানোর পর তখনকার লঙ্কান কোচ চন্দিকা হাথুরুসিংহের অধীনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ব্যাটসম্যান হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছিল পারানাভিতানার; ২০০৯ সালে করাচি টেস্টে পাকিস্তানের বিপেক্ষ।

সেবার সিরিজ চলাকালীন লাহোরে শ্রীলঙ্কার টিম বাস সন্ত্রাসী হামলা হয়। এই হামলায় যেসব লঙ্কান ক্রিকেটার আঘাত পান তার একজন পারানাভিতানা। পরে সেই ট্রমা কাটিয়ে ফের টেস্টে সফলভাবে ফিরে আসেন তিনি।  

২০১০ সালে ভারতের বিপক্ষে সিরিজে এই ব্যাক-টু-ব্যাক সেঞ্চুরি করেন পারানাভিতানা। তাকে শেষবার সাদা পোশাকের ক্রিকেটে দেখা গেছে ঘরের মাটিতে, ২০১২ সালের নভেম্বরে, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। এরপর ধৈর্য নিয়ে দীর্ঘ সময় খেলেছেন ঘরোয়া ক্রিকেট। শ্রীলঙ্কার ঘরোয়া ক্রিকেটের বেশ কিছু রেকর্ডও আছে তার দখলে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বলতে ৩৮ বছর বয়সী পারানাভিতানা কেবল টেস্টই খেলেছেন। ৩২ টেস্টে দুই শতক ও ১১ অর্ধশতকসহ ৩২.৫৮ গড়ে রান করেছেন ১ হাজার ৭৯২। ২২২টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছেন থারাঙ্গা, হাঁকিয়েছেন ৪০টি শতক ও ৬৯ টি অর্ধ শতক। শ্রীরঙ্কার মাটিতে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি রানের মালিকও তিনি, করেছেন ১৪ হাজার ৯৪০ রান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *