“আমি যেন বাংলাদেশের শেষ বিদেশি কোচ হই”– ডমিঙ্গো

বাংলাদেশ ক্রিকেট

বাংলাদেশ ক্রিকেট অঙ্গনের অনেকেরই দীর্ঘদিনের আক্ষেপ, জাতীয় দলের কোচিং স্টাফে কেন দেশি কোচরা জায়গা পান না। বরাবরই কোচিং স্টাফে প্রাধান্য পেয়েছেন বিদেশিরা। যদিও ঘরোয়া ক্রিকেট ও বিপিএলে বাংলাদেশি কোচদের রয়েছে নজরকাড়া সাফল্য।

তারপরও ব্যাটিং, ফিল্ডিং, সহ সকল প্রকার স্টাফদের তালিকায় বিদেশিদের প্রাধান্য বেশি থাকে। তবে বাংলাদেশ জাতীয় দলের বর্তমান হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো অনলাইন ভিত্তিক নিউজ পোর্টাল সমকালকে জানালেন, ২০২৩ বিশ্বকাপের পর দেশীয় কোচের হাতে দায়িত্ব তুলে দিতে চান তিনি। তিনি মনে করেন, ডমিঙ্গোই বাংলাদেশের শেষ বিদেশি কোচ।

সম্প্রতি বাংলাদেশের ব্যাটিং কোচ থেকে পদত্যাগ করেছেন ডমিঙ্গোর সতীর্থ প্রোটিয়া ক্রিকেটার ও টাইগার ব্যাটিং কোচ নিল ম্যাকেঞ্জি। হঠাৎই কেন বিদায় নিলেন তা ডমিঙ্গোর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, “ছোট ছোট ছেলেমেয়ে, পরিবার রেখে দূরদেশে টানা কাজ চালিয়ে যাওয়া খুব কঠিন। দেশে পরিবারকে সময় দিতে হয়। সন্তানদের স্কুল থাকে। স্ত্রীর চাকরি আছে। সাজানো সংসার, আত্মীয়-পরিজন ছেড়ে দুই-তিন বছরের জন্য চাইলেই পরিবার নিয়ে ঢাকায় থাকা সম্ভব হয় না। যে কারণে ভালো সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার পরও কোচরা চাকরি ছেড়ে দেন। এজন্য লোকাল কোচ থাকা খুব জরুরি।”

দেশীয় কোচ নিয়ে তিনি আরও বলেন, “অবশ্যই আমি যেন শেষ বিদেশি কোচ হই। বাংলাদেশে কাজটা খুব উপভোগ করছি। ২০২৩ সালের বিশ্বকাপ নিয়ে এগোচ্ছি। আমার পর বর্তমান দলের কারও দায়িত্ব নেওয়া উচিত। সেটাই ভালো হবে। এইচপি, একাডেমির হেড কোচ করা যেতে পারে দেশি কোচদের মধ্য থেকে। এই পর্যায়ে কাজের অভিজ্ঞতা জাতীয় দল পর্যন্ত নিয়ে যাবে। দেশে তেমন কোনো পরিকল্পনা দেখতে পাই না। বিপিএলে দেশি কোচরা সফল হচ্ছে। একাডেমি-এইচপিতে দায়িত্ব দেওয়া যেতে পারে তাদের।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *