বাংলাদেশের প্রথম বোলার হিসেবে কাপালির ইতিহাস গড়া হ্যাটট্রিকের ১৭ বছর

ফিচার

আজ থেকে ঠিক ১৭ বছর আগে, বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে প্রথম হ্যাটট্রিক করেন অলোক কাপালি। ২০০৩ সালের ২৯ আগস্ট টেস্টে পাকিস্তানের পেশওয়ারের আরবাব নেওয়াজ স্টেডিয়ামে এই কীর্তি গড়েন কাপালি।

২৭ আগস্ট শুরু হওয়া টেস্টে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়া বাংলাদেশ জাভেদ ওমরের সেঞ্চুরি (১১৯), হাবিবুল বাশারের ৯৬ আর মোহাম্মদ আশরাফুলের ৭৭-এ ৩৬১ রান করে। এই রান তারা করে শোয়েব আখতারের আগুন ঝরানো বোলিংয়ের বিপক্ষে। পিন্ডি এক্সপ্রেস ৫০ রানে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন।

তবে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো লিড পেয়েছিল দুই স্পিনারের কল্যাণে। মোহাম্মদ রফিক আর অলোক কাপালি। ১১৮ রানে ৫ উইকেট নেন বাঁ-হাতি স্পিনার রফিক। আর লেগ স্পিনে কাপালি করেন হ্যাটট্রিক। বাংলাদেশের হয়ে প্রথম হ্যাটট্রিক করেন তিনি। শেষ তিন বলেই টানা পাকিস্তানের তিন ব্যাটসম্যান সাব্বির আহমেদ, দানিশ কানেরিয়ার এবং উমর গুলকে আউট করেন তিনি।
সব ফরম্যাট মিলিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এটি বাংলাদেশের কোনো বোলারের প্রথম হ্যাটট্রিক। কাপালির হ্যাটট্রিকটি ছিল টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে ৩২তম। এ ছাড়া বাংলাদেশের আরেক বোলার সোহাগ গাজীও হ্যাটট্রিক করেছেন। ওয়ানডেতে বাংলাদেশের হয়ে হ্যাটট্রিক করেছেন শাহাদত হোসেন রাজীব (২০০৬), আবদুর রাজ্জাক রাজ (২০১০), রুবেল হোসেন (২০১৩), তাইজুল ইসলাম (২০১৪) এবং তাসকিন আহমেদ (২০১৭)।
ফলে পাকিস্তানের প্রথম ইনিংস ২৯৫ রানে গুটিয়ে যায়। ওপেনার মোহাম্মদ হাফিজ ছাড়া টপ অর্ডারের পাঁচ ব্যাটসম্যানকে আউট করেছিলেন রফিক। আর সাব্বির আহমেদ, দানিশ কানেরিয়া এবং উমর গুলকে পরপর তিন বলে আউট করে বাংলাদেশের পক্ষে টেস্টে প্রথম হ্যাটট্রিকটি করেন কাপালি।

কিন্তু প্রথম ইনিংসের লিডটাকে কাজে লাগতে পারেনি বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ৯৬ রানেই গুটিয়ে যায় লাল-সবুজরা শোয়েব-উমর গুল-সাব্বিরদের পেস আক্রমণ সামলাতে না পেরে। ১৬৩ রানের টার্গেট ১ উইকেট হারিয়েই জয় তুলে নেয় পাকিস্তান। ১০ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হন শোয়েব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *