টি-২০ অভিষেকে ঝড়ো ফিফটিতে রেকর্ড বুকে হায়দার আলী

ক্রিকেট

নিজের অভিষেক টি-২০ ম্যাচে ঝড়ো ফিফটিতে রেকর্ডবুকে জায়গা করে নিয়েছেন পাকিস্তানের ১৯ বছরের তরুণ ব্যাটসম্যান হায়দার আলী। প্রথম পাকিস্তানি ক্রিকেটার হিসেবে আন্তর্জাতিক টি-২০ অভিষেকে ফিফটির রেকর্ডে নাম লিখিয়েছেন তিনি।

ম্যানচেষ্টারে তিন ম্যাচ সিরিজের শেষ টেস্টে পাকিস্তানের জার্সিতে অভিষেক ঘটে হায়দার আলীর। পাকিস্তান সুপার লিগে দুর্দান্ত পারফর্মের কারণে দ্রুতই জাতীয় দলে সুযোগ পান তিনি।

সিরিজ বাঁচানোর লড়াইয়ের ম্যাচে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নামা পাকিস্তান শুরুতেই ফখর জামানকে হারিয়ে বিপদে পড়ে যায়। এরপর ব্যাটিংয়ে নামের ১৯ বছরের তরুণ হায়দার। নিজের দ্বিতীয় বল মোকাবেলাতেই মইন আলীকে লম্বা ছক্কা হাঁকিয়ে বড় ইনিংসের জানান দেন।

দ্রুত রান তুলে অধিনায়ক বাবর আজমের চাপ কমান হায়দার। কিন্তু এদিন অধিনায়ক নিজেই ব্যর্থ হন। বাবর ফেরেন ২১ রান করেই।

এরপর অভিজ্ঞ মোহাম্মদ হাফিজের সাথে জুটি বাঁধেন হায়দার। যেই হাফিজের টি-২০ অভিষেকর সময় হায়দার আলী ছিল ২ বছরের শিশু সেই নাবালক হায়দার হাফিজের সাথে শতরানের জুটি গড়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যান।

পাকিস্তানের হয়ে অভিষেকে সবচেয়ে বেশি ৪৬ রান করা হাফিজকে ছাড়িয়ে তারই সাথে প্রথম পাকিস্তানি হিসেবে টি-২০ অভিষেকে ফিফটির রেকর্ড গড়েন হায়দার আলী। তবে এরপর বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে পারেননি তিনি। ৩৩ বলে ৫ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় ৫৪ রান করে বিদায় নেন তিনি।

অভিষেক টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ফিফটির রেকর্ড রয়েছে বাংলাদেশের ক্রিকেটারেরও। ২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ক্যাপটাউনে পাকিস্তানের বিপক্ষে নিজের অভিষেক টি-২০ ম্যাচে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ফিফটি করেছিলেন ওপেনার জুনায়েদ সিদ্দিক। ম্যাচটিতে ৩৫ বলের ফিফটিতে ৪৯ বলে ৭১ রানের ইনিংস খেলেছিলেন জুনায়েদ। যা সেই সময়ে অভিষেক টি-২০ ম্যাচে করা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডও হয়েছিল। জুনায়েদ সিদ্দিকির পর এখন পর্যন্ত আর কোন বাংলাদেশী ক্রিকেটার অভিষেক টি-২০ তে ফিফটির রেকর্ড গড়তে পারেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *