বিরাটকে আমরা ঘৃণা করতে ভালোবাসি: টিম পেইন

ক্রিকেট

ক্রিকেট বিশ্বে বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। চরম শত্রু হলেও তার ব্যাটিং দেখতে অপছন্দ করেন না। অস্ট্রেলিয়ার কোচও কদিন আগেই বললেন কোহলি তার কাছে সেরা ক্রিকেটার। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক টিম পেইন জানালেন, আর পাঁচজনের মতো বিরাটকে দেখেন তিনি। আর অজি খেলোয়াড়রা ভারতীয় অধিনায়ককে ‘ঘৃণা করতে ভালোবাসেন’।

এবিসি স্পোর্টসে পেইন বলেন, ‘বিরাট কোহলিকে নিয়ে আমায় প্রচুর প্রশ্ন করা হয়। ও আমার কাছে পাঁচজনের মতো খেলোয়াড়। ওটা নিয়ে আমি খুব একটা মাথা ঘামাই না। সত্যি কথা বলতে ওর সঙ্গে আমার তেমন সম্পর্ক নেই। টসের সময় ওর সঙ্গে দেখা হয়। ওর সঙ্গে খেলি। সেটাই যা হয়।’

অজি অধিনায়ক আরও জানান, ‘বিরাটকে নিয়ে ব্যক্তিগতভাবে দু’ধরনের মানসিকতা আছে। পেইনের কথায়, ‘বিরাটের বিষয়টি মজাদার। আমরা ওকে ঘৃণা করতে ভালোবাসি। একইসঙ্গে ক্রিকেটভক্ত হিসেবে ওর ব্যাটিং দেখতে ভালোবাসি। সেরকম ক্ষেত্রে ও অবশ্য মেরুকরণ করতে পারে। ওকে ব্যাট করতে দেখতে আমাদের ভালো লাগে। তবে ওর বেশি রান দেখতে মোটেও ভালো লাগে না।’

২০১৮ সালে মাঠে পেইন এবং বিরাটের দ্বৈরথ দেখা গিয়েছিল। দু’জন একে অপরের কাছেও চলে এসেছিলেন। তবে তা পরিস্থিতি আয়ত্তের বাইরে বেরিয়ে যায়নি।

পেইন বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া ও ভারত – সর্বদাই এটা উত্তেজক লড়াই। ও অবশ্যই প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক খেলোয়াড় এবং আমিও তেমন। তাই আগে কয়েকটি এমন ঘটনা হয়েছে, যখন আমাদের মধ্যে কথা হয়েছে। তবে সেটা এই কারণে নয় যে ও অধিনায়ক এবং আমি অধিনায়ক বলে, এটা যে কেউ হতে পারে।’

এমনিতে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে বিরাটের সম্পর্ক খুব একটা মধুর নয়। তা অবশ্য উলটে বিরাটকে তাতিয়ে দেয়। আর সেই প্রমাণ মিলেছিল ২০১৪ সালে। সেবার চারটি শতরান-সহ চার ম্যাচে ৬৯২ রান করেছিলেন বিরাট। প্রথম টেস্ট অ্যাডিলেডে জোড়া শতরান করেছিলেন। ২০১২ সালেও সেই মাঠেই শতরান হাঁকিয়েছিলেন। ২০১৮ সালে অবশ্য ব্যাট হাতে অস্ট্রেলিয়ায় টেস্ট সিরিজ খুব একটা ভালো যায়নি বিরাটের। চার ম্যাচে করেছিলেন ২৮২ রান। তবে তাঁর নেতৃত্বে ঐতিহাসিক সিরিজ জিতেছিল ভারত। এবার মাত্র একটি টেস্ট খেলবেন বিরাট। যা অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে যথেষ্ট স্বস্তির খবর।

পেইন বলেন, ‘ওর মতো খেলোয়াড় যখন থাকে, তখন সবসময় উত্তেজনা থাকে। আপনি যখন ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে খেলেন, তখনও বিষয়টি একই হয়। সেক্ষেত্রে জো রুট বা বেন স্টোকস থাকে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এটা হয় যে আপনার দল (বিপক্ষের) সেরা খেলোয়াড়ের বিরুদ্ধে এগিয়ে যায়। যখন বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় ক্রিজে আসেন, তখন প্রতিদ্বন্দ্বিতা বেড়ে যায়।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *