টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে উত্তেজনা বাড়াতে বিগ ব্যাশে যুক্ত হলো নতুন তিন নিয়ম

বিগ ব্যাশ

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে উত্তেজনা বাড়িয়ে তুলতে বিভিন্ন দেশের ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে যুক্ত করা হয় নতুন নতুন নিয়ম। তারই ধারাবাহিকতায় বিগ ব্যাশকে আরো জমজমাট করতে এবারের আসরে নতুন তিন নিয়ম চালু করতে যাচ্ছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। ‘পাওয়ার সার্জ’, ‘এক্স ফ্যাক্টর’ ও ‘ব্যাশ বুস্ট’ নামে নতুন তিন নিয়ম প্রয়োগের কথা নিশ্চিত করেছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট।

নতুন এই তিন নিয়ম যুক্ত করা হচ্ছে বিগ ব্যাশের পরামর্শক ট্রেন্ট উডহিলের পরামর্শে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট, ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটের নানা দলে ও নানা জায়গায় বিভিন্ন ভূমিকায় কাজ করার পর গত অগাস্টে তিনি যোগ দিয়েছেন বিগ ব্যাশের পরামর্শক হিসেবে। নতুন এসব সংযুক্তি ৪০ ওভারের ম্যাচকে আরও এগিয়ে নেবে বলেই বিশ্বাস উডহিলের।

পাওয়ার সার্জ

প্রথাগত টানা ৬ ওভারের পাওয়ার প্লে থাকছে না। তার বদলে ইনিংসের শুরুতে থাকবে ৪ ওভারের বাধ্যতামূলক পাওয়ার প্লে। বাকি দুই ওভার ব্যাটিং দল নিতে পারবে ১১ ওভার থেকে যে কোনো সময়। এই দুই ওভারের নাম ‘পাওয়ার সার্জ।’ এই দুই ওভারে ৩০ গজ বৃত্তের ভেতরে ও বাইরে ফিল্ডার রাখার নিয়ম ৪ ওভারের পাওয়ার প্লের মতোই থাকবে।

এক্স-ফ্যাক্টর

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এক সময় চালু করা হয়েছিল ‘সুপার-সাব।’ মোটেও সফল হয়নি সেই পরীক্ষা। বাতিল করে দেওয়ার ১৫ বছর পর নতুন মোড়কে আনা হলো বদলি ক্রিকেটার খেলানোর সুযোগ।

প্রথম ইনিংসের ১০ ওভারের পর বদলি ক্রিকেটার নিতে পারবে দুই দলই। সেই ক্রিকেটারকে হতে হবে খেলোয়াড় তালিকার দ্বাদশ বা ত্রয়োদশ ব্যক্তি। প্রথম ১০ ওভারের মধ্যে যে ক্রিকেটার ব্যাট করেননি কিংবা ১ ওভারের বেশি বল করেননি, কেবল তাদেরই বদলি নেওয়া যাবে।

এই বদলি নেওয়া যাবে ১০ ওভারের পর। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, কোনো বোলার ১০ ওভারের আগে চোট পেলেও তখনই তার বদলি নেওয়া যাবে না।

‘ব্যাশ বুস্ট’

ম্যাচ জয়ের জন্য এখন আর দুই পয়েন্ট নয়, সুযোগ থাকবে চার পয়েন্ট জয়ের। তবে শুধু ম্যাচ জয়ের জন্য থাকছে তিন পয়েন্ট। বাকি এক পয়েন্ট জয়ের সুযোগ থাকবে দুই দলেরই। এই ‘ব্যাশ বুস্ট’ পয়েন্ট নির্ধারিত হবে দ্বিতীয় ইনিংসের ১০ ওভার পর। প্রথম ১০ ওভার করে শেষে যে দলের রান বেশি থাকবে, তারাই পাবে ওই এক পয়েন্ট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *