মাশরাফি-রুবেলদের সাথে নিজের ইনজুরি মিলাতে চাননা সাইফউদ্দিন

বাংলাদেশ ক্রিকেট

সদ্য শেষ হওয়া বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের আগ মূহুর্তে গোড়ালিতে চোটে পেয়ে বসেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। আর সেই চোটের কারণে টুর্নামেন্টের শুরুর দিকে বেশ কিছু ম্যাচ খেলতে পারেননি তিনি। যদিও শেষ দিকে মিনিস্টার রাজশাহীর হয়ে তিনটি ম্যাচ খেলতে নামলেও চোটের প্রভাব পড়ে পারফরম্যান্সেও।

তবে সাইফউদ্দিন বা পেসারদের চোট নতুন কিছু নয়। ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি ইনজুরিতে পড়েন পেসাররা। এই যেমন ২০১০ সাল থেকে চোট নিয়ে লড়াই করে যাচ্ছেন সাইফউদ্দিন। তবে শুধু সাইফ নন, মাশরাফি-রুবেলদের মতো পেসাররাও চোটে আক্রান্ত হয়ে ক্যারিয়ার লম্বা সময় দলে টিকে আছেন।

এমনকি অনেক পেসারদেরও ইনজুরিতে ক্যারিয়ার শেষ হয়ে গেছে। তবে নিজের ইনজুরি নিয়ে কারো সাথে মিলাতে চাননা সাইফউদ্দিন। ইনজুরি মুক্ত থেকে দলে টিকে থাকা তার লক্ষ্য। তার ইনজুরি পড়ার ব্যাপারে গণমাধ্যমকে সাইফউদ্দিন বলেন, “এইটা আসলে অভ্যাস হয়ে গেছে ২০১০ থেকেই। যখন আমি প্রথম বোর্ডের অধীনে ট্যুর করি, পিঠে ব্যথা পেয়েছিলাম। সিটি ক্লাব মাঠে যখন অনুশীলন ম্যাচ খেলছিলাম তখন ডাইভ দিতে গিয়ে কব্জিতে চোট পেয়েছিলাম। আমার শুরুটা এভাবেই।”

“এইখানে কিছু করার নেই। রুবেল ভাইকে দেখেন- দশ বছরেরও বেশি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছেন। উনিও ইনজুরিতে পড়েছেন টুকটাক তবে দীর্ঘ সময়ের জন্য মাঠের বাইরে ছিলেন না।”– যোগ করে তিনি।

এছাড়া মাশরাফির ইনজুরি নিয়ে সাইফউদ্দিন আরও বলেন, “মাশরাফি ভাইও অনেকবার ইনজুরিতে পড়েছেন আবার কামব্যাক করেছেন আবার ইনজুরিতে পড়েছেন। একেকটা ক্রিকেটারের ভাগ্য একেকরকম। এইখানে তো কারো হাত নেই। তারপরও চেষ্টা করি নিজেকে যতটা ফিট রাখা যায়। সর্বশেষ যে ইনজুরিটা হয়েছে এইটা খুবই ‘সিলি’। এটাই জীবন।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *