যে কারণে সেই ধোনিকেই দশক সেরা ভদ্র ক্রিকেটার নির্বাচিত করল আইসিসি

বাংলাদেশ ক্রিকেট

ক্রিকেট ভদ্রলোকের খেলা। এই ভদ্রলোকের খেলায় দশকের সেরা ভদ্র ক্রিকেটার হিসেবে ভারতের সাবেক অধিনায়ক মাহেন্দ্র সিং ধোনিকে নির্বাচিত করেছে আইসিসি।

ক্রিকেটের স্পিরিট রক্ষার দিকে বরাবর নজর থাকে মহেন্দ্র সিং ধোনির। কিন্তু ২০১৫ সালে বাংলাদেশের মাটিতে যখন মোস্তাফিজের বিপক্ষে নাজেহাল টিম ইন্ডিয়া, তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচই হেরে বসে ধোনির ইন্ডিয়া, ওই ম্যাচে মোস্তাফিজের বলে রান নেওয়ার সময় ইচ্ছা করে ফিজকে ধাক্কা দেন ধোনি।

সেই ছবি ও ভিডিও তিখন ভাইরালের সাথে সাথে ধোনিকে নানা সমালোচনার শিকারও করেছিল। কিন্তু দশক সেরা ফেয়ার প্লে পুরস্কার জিতলো অন্য এক ম্যাচের জন্য।

২০১১ সালে নটিংহ্যাম টেস্টে ইয়ান বেল অদ্ভূতভাবে রান-আউট হওয়ার পর ধোনি তাঁকে পুনরায় ব্যাট করতে ডেকে নেন।

সমর্থকরা ধোনির এই আচরণকেই সমবেতভাবে বেছে নেন দশকের সেরা স্পিরিট অফ ক্রিকেটের পুরস্কারের জন্য। সমর্থকদের একচেটিয়া ভোটেই স্বীকৃতি পান ক্যাপ্টেন কুল।


ধোনি এর আগে আইসিসির দশকের সেরা ওয়ান ডে ও টি-২০ দলের ক্যাপ্টেন নির্বাচিত হয়েছেন। সুতরাং আইসিসির দশকের সেরা পুরস্কারে কোহলির পাশাপাশি ধোনির আধিপত্যও চোখে পড়েছ।

উল্লেখ্য ২০১১ সালেই ভারতকে ক্রিকেট বিশ্বকাপ উপহার দিয়েছিলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। দুই বছর পর টিম ইন্ডিয়া আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জিতেছিল এমএসেরই নেতৃ্ত্বে। ২০০৭ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতা ধোনির নাগালে বিশ্বের সবকটি বড় মাপের আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট। চেন্নাই সুপার কিংসের জার্সিতে তিন বার আইপিএল জেতা মাহিকে দশক সেরা ওয়ান ডে ও টি-টোয়েন্টি বিশ্ব দলের নেতা নির্বাচন করেছে আইসিসি।

২০১৯ সালের জুলাই-তে ভারতীয় দলের জার্সিতে শেষবার মাঠে নেমেছিলেন এমএস। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে শেষ বার বাইশ গজে দেখা গিয়েছিল ধোনিকে। এক বছরেরও বেশি সময় মাঠের বাইরে থাকার পর গত ১৫ অগাস্ট আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানান ভারতের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক। যদিও অন্তত আরও একটা আইপিএল খেলবেন বলেই জানিয়েছেন মহেন্দ্র সিং ধোনি।

অন্যদিকে, আইসিসির দশকের সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন বিরাট কোহলি। তিনি দশকের সেরা ওয়ান ডে ক্রিকেটারের পুরস্কারও হাতে তুলেছেন। সেরা টেস্ট ক্রিকেটারের পুরস্কার উছেঠে অস্ট্রেলিয়ার স্টিভ স্মিথের হাতে। সেরা টি-২০ ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন আফগানিস্তানের রশিদ খান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *