বিখ্যাত হতেই বাবরের বিরুদ্ধে ধ’র্ষণের মিথ্যা অভিযোগ করেছিলেন – নিজেই স্বীকার করলেন সেই নারী

Uncategorized

গত বছর ডিসেম্বরের শুরুর দিকে পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজমের বিরুদ্ধে ভয়ংকর এক অভিযোগ করেছিলেন হামিজা মুখতার নামের এক নারী। লাহোরে সংবাদ সম্মেলন ডেকে এই নারী অভিযোগ করেন, বাবর আজম তাঁকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, ধ’র্ষণ করেছেন। এমনকি গর্ভে সন্তান আসায় তাঁকে গর্ভপাতেও বাধ্য করেন পাকিস্তান অধিনায়ক। পরে নাকি বাবর তাঁকে মেরে ফেলার হু’মকিও দিয়েছেন।

সেই সময় ভয়াবহ এই অভিযোগ করলেও অবশেষে নিজেকে বাবরের স্কুলের সহপাঠী পরিচয় দেওয়া এই নারী তুলে নিয়েছেন তাঁর সব অভিযোগ। পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম আজ জানিয়েছে, বাবরের বিরুদ্ধে যৌ’ন নি’র্যাতনের অভিযোগ তুলে নিয়ে হামিজা মুখতার জানিয়েছেন, পাকিস্তান অধিনায়কের সঙ্গে অতীতে তাঁর কোনো সম্পর্ক ছিল না, এখনো নেই।

পাকিস্তানের সংবাদকর্মী সাজ সাদিক আজ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে এ নিয়ে একটি ভিডিও পোস্ট করেন। সেখানে দেখা যায়, হামিজা মুখতার আইনজীবীর সামনে এক চুক্তিনামায় সই করছেন।

পরে আইনজীবী তা পড়ে শোনান। সেই আইনজীবী সংবাদমাধ্যমকে জানান, ‘কিছু বন্ধুর উসকানিতে’ বাবরের বি’রুদ্ধে এমন গুরুতর অভিযোগ করেছিলেন হামিজা মুখতার।

তাঁর পক্ষ থেকে অভিযোগ তুলে নেওয়ার বিবৃতি পড়ে শোনান সেই আইনজীবী, ‘কোনো চাপ ছাড়াই আমি এই বিবৃতি দিচ্ছি। কিছু বন্ধু আমাকে বলেছিল বাবরের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করো, বিখ্যাত হয়ে যাবে। এরপর আমি এমন কোনো অভিযোগ করলে, আমার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।’

এর আগে বৃহস্পতিবার হামিজার অভিযোগ শুনানির পর অতিরিক্ত বিচারক মোহাম্মদ নাঈদ নাসিরাবাদ পুলিশকে বাবরের বিরুদ্ধে মামলা দাখিলের নির্দেশ দেন। গত ডিসেম্বরে পাকিস্তান অধিনায়কের বিরুদ্ধে আদালতে কয়েকটি অভিযোগ করেন হামিজা।

বাবর নাকি তাঁকে ‘ভালোবাসার ফাঁদে ফেলে নির্যাতন’ করেছিলেন। বাবর ক্রিকেটে উঠে আসার কষ্ট করার সময় তাঁকে নাকি ‘আর্থিকভাবেও সাহায্য করেছিলেন’ এই নারী। এদিকে বাবরের আইনজীবী বলেছিলেন, হামিজা মুখতার তাঁর মক্কেলকে ব্ল্যাকমেল করছেন এবং অভিযোগ তুলে নেওয়ার জন্য ৪৫ লাখ রুপি দাবি করেছেন।

পরে সেখান থেকে নেমে ১০ লাখ রুপি এবং শেষ পর্যন্ত ২ লাখ রুপিও দাবি করেছিলেন এই নারী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *