সাকিবের মাত্র দুইটি কথাতে বদলে গেল মিরাজ

বাংলাদেশ ক্রিকেট

বাংলাদেশ দলেদ সিনিয়র ক্রিকেটারদের সাথে মেহেদী হাসান মিরাজের সম্পর্কটা বরাবরই ভালো। অনেকদিন ধরে জাতীয় দলে খেললেও এখনো সিনিয়রদের পরামর্শ কতটা বদলে দেয় তাকে- তা স্বীকার করতে কখনোই দ্বিধা নেই মিরাজের। শুক্রবার ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারানোর পরও মিরাজ শিকার করলেন সিনিয়রদের কৃতিত্ব।

মিরাজ বিশেষভাবে সাকিব আল হাসানের কথাই উচ্চারণ করলেন। প্রতিপক্ষের ইনিংসে দুজনের ভূমিকায় মিলও আছে। তাই যখন প্রত্যাশা অনুযায়ী পারফর্ম করতে পারেন না, তখনই সাকিবের দ্বারস্থ হন মিরাজ। সাকিবের কথাতেই প্রথম ম্যাচের পর দারুণ পারফরম্যান্সে দ্বিতীয় ম্যাচে দলের সাফল্য এনে দিয়েছেন বলে অভিমত মিরাজের।

মিরাজ বলেন, ‘ম্যাচে স্পিনাররা খুব ভালো জায়গায় বোলিং করেছে। বিশেষ করে সাকিব ভাই। সাকিব ভাইয়ের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে তো আমরা সবাই জানি। সবসময় ভালো বোলিং করেন, পরিস্থিতি অনুযায়ী বল করেন। জুনিয়র খেলোয়াড় হিসেবে অনেক কিছু শিখি সাকিব ভাইয়ের কাছে থেকে। তিনি বিভিন্ন পরামর্শ দেন, পরিস্থিতি অনুযায়ী বিভিন্ন কথা বলেন।’

সাকিব কী পরামর্শ দিয়েছিলেন মিরাজকে? মিরাজের ভাষ্য, ‘প্রথম ম্যাচে আমি কিন্তু ওরকম ছন্দে ছিলাম না। সাকিব ভাই হয়ত দুইটি কথা বলেছেন, ওই দুইটি কথাই আমার অনেক কাজে লেগেছে। যেমন- বাঁহাতি ব্যাটসম্যান যখন ব্যাটিং করছিল, আমার বিরুদ্ধে স্বাচ্ছন্দ্যেই ব্যাটিং করছিল। আমাকে তখন সাকিব ভাই বলেছিল- হয়ত তুই লেগ মিডলে বল করলে ভালো হবে। তখন কিন্তু হঠাৎ করে আমার চিন্তা হয়ে গেছে যে না আমি ঐখানে বল করলে হয়ত ট্রাভেল করবে। কিছুক্ষণ এক ওভার বোলিং করার পর একটা মেডেনও নিয়েছি।’

শুধু সাকিব নন, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও মিরাজকে এমন অনেক পরামর্শ দেন যা কিনা টনিকের মত কাজ করে। মিরাজ বলেন, ‘ছোট ছোট ভাবনা ও পরিবর্তনগুলো কিন্তু অনেক সহায়তা করে। আজকের ম্যাচে দেখুন, আমি যখন বল করছিলাম… তিন ওভার পর উইকেট পাচ্ছিলাম না ভালো জায়গায় বল করার পরও। রিয়াদ ভাই হয়ত ফিল্ডিংয়ে একটা পরিবর্তন করেছেন আমার সাথে কথা বলে, আমাকে বলল যে তুই ক্যাপ্টেনের সঙ্গে ডিসকাস করতে পারিস। তার পরের বলেই কিন্তু উইকেটটা পেয়েছি। এটা আমার জন্য অনেক স্পেশাল ছিল। রিয়াদ ভাইয়ের ওই ছোট্ট পরিবর্তনটা… আমি ক্যাপ্টেনের সঙ্গে ডিসকাস না করে যদি না করতাম তাহলে হয়ত উইকেটটা পেতাম না, নিজের কনফিডেন্সটা বিল্ড আপ হতো না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *