শৈশবের স্মৃতিবিজড়িত জিটিএ ভাইস সিটির স্বাদ এখন সাধারণ স্মার্টফোনেই! (ডাউনলোড লিঙ্কসহ)

ফিচার

রক স্টার গেমসের জিটিএ (Grand Theft Auto) সিরিজের কথা এপ্রজন্মের কে না জানে? নব্বইয়ের দশকের মোটামুটি শেষদিকে বা এরপরে যাদের জন্ম, তাদের কাছে একটা সময় কম্পিউটার গেমস মানেই যেন ছিল ‘জিটিএ ভাইস সিটি’ কিংবা ‘জিটিএ স্যান এন্ড্রিয়েস’। এমনকি শুধুমাত্র এই গেমসগুলো খেলার জন্যই তখনকার দিনে অনেকে বাবা-মায়ের কাছে কম্পিউটার কেনার বায়না ধরেছিলেন। তাদের মধ্যে কয়েকজনের মনের আশা সেই পূরণ হলেও, এখনো এমন অনেক উদাহরণ আছে, যারা আজকের দিনে এসেও জিটিএ সিরিজের অভিজ্ঞতা নিতে পারেননি। অন্যদিকে ছোটবেলায় যাদের দিনে কয়েক ঘন্টা জিটিএ ভাইস সিটি না খেললে রাতে ঘুম আসতো না, তারাও আজ দৈনন্দিন জীবনের নানা ব্যস্ততার মাঝে খুব করে মন চাইলেও গেমগুলো আর খেলতে পারছেন না। কিন্তু আজকের এই প্রতিবেদনটি সেসব জিটিএ প্রেমিদের মনের এক কোণে জমে থাকা হতাশার ভার খানিকটা হলেও কমিয়ে দিতে পারে। কেননা আজকে আমরা এমন একটি ভিডিও গেমের কথা বলতে যাচ্ছি, যেটা আপনাকে আবারো নিয়ে যাবে শৈশবের সেসব সোনালী দিনগুলোতে।

 

ব্রিটেনের ‘এপেক্স ডিজাইনস এন্টারটেইনমেন্ট’ – এর তৈরি এই গেমটির নাম ‘পে ব্যাক টু – দ্য ব্যাটেল সেন্ডবক্স’ (Payback 2 – The battle sandbox) । জিটিএ সিরিজের গেমগুলোর মতো এটিও একটি থার্ড পারসন অ্যাকশন গেম। গেমটির সাইজ মাত্র ১০০ এমবির কিছু বেশি হওয়াতে খুব সাধারণ মানের একটি স্মার্ট ডিভাইসেও এটি বেশ সুন্দরভাবে খেলা যাবে। কিন্তু তাই বলে আবার স্রেফ বাচ্চাদের জন্য তৈরি নিম্নমানের গেম বলেও এটিকে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। কারণ প্রবাদেই আছে, ‘ছোট মরিচে ঝাল বেশি।’ পে ব্যাক টুর গ্রাফিক্স এবং স্টোরি সেটআপ দেখে আপনার সত্যিই বারবার এ কথাটি মনে পড়বে। কারণ হাই স্পিড হেলিকপ্টার রেস থেকে শুরু করে বিধ্বংসী ট্যাংক যুদ্ধ – কি না করা যায় ছোট্ট এই গেমটিতে!

 

গেমটির ফিচার এবং বিশেষত্ব

ফুটবল মাঠের ওপর দিয়ে উড়ে যাচ্ছে পে ব্যাক টুর হেলিকপ্টার

আগেই বলেছি (পড়ুন লিখেছি!) পে ব্যাক টু একটি থার্ড পারসন অ্যাকশন গেম। সুতরাং এখানে একটি চরিত্রকে আশ্রয় করে আপনাকে পুরো গেমটি শেষ করতে হবে। তবে গেমটি খেলার মাধ্যমে অর্জন করা কয়েন ব্যবহার করে আপনি ইচ্ছামতো নিজের চরিত্রটিকে সাজাতে পারবেন। জিটিএর আদলে তৈরি করা এই গেমটিতে প্রধানত ক্যাম্পেইন এবং স্টোরি নামের দুইটি পর্যায় রয়েছে। এই দুই পর্যায় মিলিয়ে রয়েছে অনেকগুলো মিশন বা লেভেল। এখানে একটি পর্ব পূর্ণ করতে পারলে তবেই পরের পর্বটি খেলা যাবে। এভাবে পুরো গেমটি জুড়ে ঘুরেফিরে মোট দশটি শহরে আপনি ঘুরতে পারবেন। এছাড়া গেমটিতে ট্যাংক, হেলিকপ্টার, স্পিড বোট থেকে শুরু করে ল্যান্ডরোভার, লিমো, লেম্বরগিনি, পোর্শের মতো বাস্তব জগতের বেশকিছু মডেলের বিলাসবহুল গাড়ির দেখা পাবেন আপনি। আবার, জিটিএ সিরিজের রিমোট কন্ট্রোল খেলনা গাড়ির ব্যবহারও আপনি এখানে খুব সহজেই করতে পারবেন। আরসি ট্রাক নামের একধরনের গাড়িতে এগুলো সংযুক্ত অবস্থায় থাকে। আরো মজার ব্যাপার হলো, এসব রিমোট কন্ট্রোলড গাড়িতে বিষ্ফোরক যুক্ত থাকায় তা দিয়ে সহজেই প্রতিপক্ষের আস্তানায় হানা দেওয়া যায়। এছাড়াও গেমটিতে ব্যবহৃত অন্যান্য অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে ছুরি, পিস্তল, শর্টগান, মেশিন গান, রকেট লঞ্চার, অটো টার্গেট, ফ্লেম থ্রোয়ার, গ্রেনেড, রিমোট কন্ট্রোলড বোম, লেজার গান ইত্যাদি। এরমধ্যে পিস্তলে আপনি যতো খুশি গুলি ব্যবহার করতে পারবেন। বাকি অস্ত্রগুলো শহরের বিভিন্ন প্রান্তে লুকানো থাকে, অনেকটা জিটিএ সিরিজের গেমগুলোর মতো। তবে ক্যাম্পেইন মোডের কিছু পর্বে আপনাকে শুরু থেকেই প্রয়োজন মতো অস্ত্র দেওয়া হবে।


গেমটির আরেকটি আকর্ষণ হচ্ছে, এর স্টোরি মোডের মিশন – ‘Caught By The Fuzz.’ যেখানে গেমটির কেন্দ্রীয় চরিত্রের বাড়িতে পুলিশ তল্লাশি চালিয়ে তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দন্ডিত করে। এমন সময় আপনার বসের পাঠানো একজন লোকের সাহায্যে আপনাকে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে জেল থেকে পালিয়ে ঘরে ফিরে আসতে হবে। এছাড়াও গেমটিতে রয়েছে অনলাইন মাল্টিপ্লেয়ার অবশন। যেখানে আপনি বিশ্বের অন্যান্য গেমারদের সঙ্গে পছন্দমতো ফর্ম্যাটে ম্যাচ খেলতে পারবেন। আবার পার্সোনাল রুম তৈরি খেলা যাবে নিকাত্মীয় বা বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে।


উল্লেখ্য, পে ব্যাক টু প্রথম মুক্তি পায় ২০১৩ সালে। তারপর থেকে প্রায় প্রতি বছরই গেমটিতে নতুন নতুন পরিবর্তন আনা হয়েছে। যে কারণে স্টোরেজ বিবেচনায় গেমটির গ্রাফিক্স থেকে শুরু করে সবকিছু যেকোনো গেমারের মন কাড়তে বাধ্য। গুগল প্লে স্টোরে বর্তমানে পেবেক টুর রিভিউ ৫ এর মধ্যে ৪.৪ পয়েন্ট। অবশ্য অ্যাপল ব্যবহারকারীদের মাঝে গেমটির পয়েন্ট ৫ এর মধ্যে ৪.৮। তবে গেমটি এখনো কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের জন্য মুক্তি পায়নি।

প্লে স্টোরঃ https://play.google.com/store/apps/details?id=net.apex_designs.payback2&hl=en&gl=US

অ্যাপ স্টোরঃ https://apps.apple.com/us/app/payback-2/id570426586

আমাদের প্রাণের শহর ঢাকার মতো জ্যামের দেখা পাবেন এখানেও!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *