কষ্টার্জিত জয়ে শেষ আটের পথে এগিয়ে রিয়াল

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ক্লাব ফুটবল

ম্যাচের অধিকাংশ সময় জুড়ে এক জন বেশি নিয়ে খেলার সুবিধা কাজে লাগাতে পারছিল না রিয়াল মাদ্রিদ। শঙ্কা জেগেছিলো আটালান্টার জমাট রক্ষণ ভাঙতে না পারারও। আচমকা দূর পাল্লার শটে প্রতিরোধ ভাঙলেন লেফটব্যাক ফারল্যান্ড মেন্ডি। যার সুবাদে ইতালি থেকে জয় নিয়ে ফিরল জিনেদিন জিদানের দল।

ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে আক্রমণাত্মক শুরু করে আটালান্টা। চোটের জন্য অনেক শক্তি হারানো রিয়ালের মনোযোগ ছিল খেলার গতি কমিয়ে রাখার দিকে।

সপ্তদশ মিনিটে ১০ জনের দলে পরিণত হয় আটালান্টা । ডি-বক্সের বাইরে মেন্ডিকে ফাউল করলে ফ্রয়লারকে সরাসরি লাল কার্ড দেখান রেফারি।

এক জন কম নিয়ে খেললেও কমেনি আটালান্টার খেলার গতি। যদিও বল দখল, গোলের জন্য শট ও লক্ষ্যে শটে বেশ এগিয়ে ছিল রিয়াল। তবে সেভাবে ভালো সুযোগ কমই তৈরি করেছে ইউরোপের সফলতম দলটি।

৩৮তম মিনিটে ইসকোর সামনে সুযোগ আসে দলকে এগিয়ে নেওয়ার। তার শট এক জনের গায়ে লেগে একটুর জন্য বাইরে দিয়ে চলে যায়। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে গোল প্রায় পেয়েই যাচ্ছিল রিয়াল। টনি ক্রুসের ফ্রি কিকে কাসেমিরোর হেড কোনোমতে ফিরিয়ে দেন আতালান্তা গোলরক্ষক।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে আটালান্টাকে চেপে ধরে রিয়াল। গোলও প্রায় পেয়ে যাচ্ছিল দ্রুতই। ৪৭তম মিনিটে লুকা মদ্রিচের বুলেট গতির শট এক জনের গায়ে লেগে পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়।

৫৩তম মিনিটে ভিনিসিউস জুনিয়র ৭ গজ দূর থেকে বল জালে পাঠাতে পারেননি। নষ্ট হয় সফরকারীদের আরেকটি সুযোগ।

কোনোমতেই সিরি আর দলটির জমাট রক্ষণ ভাঙতে পারছিল না রিয়াল। শেষ পর্যন্ত ৮৬তম মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে বাঁকানো শটে ঠিকানা খুঁজে নেন মঁদি। রিয়াল পায় স্বস্তির জয়।

আগামী ১৬ মার্চ রিয়ালের মাঠে আবার মুখোমুখি হবে দল দুটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *