মরগ্যান, রাসেল, নারাইনের কাজ সাকিব একাই করতে পারেন: কেকেআর

আইপিএল

কলকাতা নাইট রাইডার্সের ভাগ্য বলা হয় সাকিব আল হাসানকে। কলকাতার দুই শিরোপার অন্যতম নায়ক সাকিব আল হাসান দলটির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সাকিব যে দুই আসরে নাইটদের হয়ে খেলেননি সবশেষ সেই দুই আসরে প্লে-অফেই খেলতে পারেনি নাইটরা। তাই এবার ঘরের ছেলেকে ঘরে ফিরিয়েছে কলকাতা।


জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপন করে এক বছরের জন্য সব ধরণের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ ছিলেন সাকিব আল হাসান। এর মাঝে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) একটি আসরও চলে যায়। তবে নিষেধাজ্ঞার পর তাকে আরও বেশি পারিশ্রমিকে দলে ভেড়ায় কলকাতা নাইট রাইডার্স।

ভিত্তিমূল্য ২ কোটি রুপি হলেও মাত্র ৩ কোটি ২০ লাখ রুপিতে দলে নেয় সাকিবকে। বলা যায় কম দামে চড়া দামের খেলোয়াড় পেয়েছে ফ্র্যাঞ্চাইজিটি। এ নিয়ে অনেক আলোচনাও হয় লম্বা সময়।

তবে নিলামের আগে যে খেলোয়াড়কে নিয়ে বেশি আলোচনা হয়েয়ে নাইট টিম ম্যানেজমেন্টে, তিনি সাকিব আল হাসান। এমনটাই জানাচ্ছে কলকাতার নাইটসের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে। দলটির পারফরম্যান্স ও স্ট্রেটেজি এনালিস্ট এআর শ্রীকান্তের মতে, খেলোয়াড় নিলামের আগে সাকিবই ছিল সব আলোচনার ঊর্ধ্বে।

শ্রীকান্তের ভাষ্যে, ‘আমরা যখন নিলাম এবং খেলোয়াড়দের বিকল্প নিয়ে আলোচনা শুরু করি তখন আমাদের সব আলোচনায় একটি নাম উল্লেখযোগ্য ছিল তা হলো সাকিব।’

তবে এত খেলোয়াড় থাকতে সাকিব কেন সেই ব্যাখ্যাও দিয়েছেন শ্রীকান্ত। তার মতে সাকিব এমন একজন খেলোয়াড় যিনি ব্যাটিং, বোলিং এমনকি তার রয়েছে নেতৃত্বের গুণাবলিও। ‘এটা ঠিক যে, তার ব্যাটিং, বোলিংয়ের সঙ্গে রয়েছে নেতৃত্বের গুণাবলীও। যা বিবেচনা করলে সাকিবের বিকল্প নেই। বিশেষ করে আমাদের তিনজন প্রথম সারির খেলোয়াড়ের বিকল্প সে। যেমন সুনীল, আন্দ্রে রাসেল ও মরগ্যান।’

সাকিবের ২০১৯ বিশ্বকাপের পারফর্ম টেনে শ্রীকান্ত বলেন, তার কোয়ালিটি নিয়ে আর কোনো প্রশ্ন থাকতে পারে না। সে একজন প্রিমিয়ার অল-রাউন্ডার। ‘সাকিব নিঃসন্দেহে একজন প্রিমিয়ার অল-রাউন্ডার। ২০১৯ বিশ্বকাপে তার পারফর্ম দেখলে আর কোনো প্রশ্ন থাওতে পারে না। তাই সাকিব আমাদের প্রথম পছন্দ। তাই চেষ্টা করব যতটা খেলানো যায় তাকে।’

এর আগে ২০১১ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত কলকাতার জার্সিতে খেলেছেন এবং দুইবার চ্যাম্পিয়নশিপ জেতা দলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। টেস্ট ও ওয়ানডে ক্রিকেটের মতো সাকিবের টি-টোয়েন্টি রেকর্ডও বেশ ঈর্ষণীয়। ৩১৭ ম্যাচে রান করেছেন ৫ হাজার ৮০টি। উইকেট নিয়েছেন ৪৭৪টি। টি-টোয়েন্টিতে ৫ হাজারের বেশি রান ও ২৫০ এর বেশি উইকেট নেওয়া পাঁচজন ক্রিকেটারের একজন সাকিব।

আগামী ৯ এপ্রিল থেকে শুরু হবে আইপিএলের ১৪তম আসর। আগামী ১১ এপ্রিল সাকিবদের প্রথম ম্যাচ সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *