অভিষেকেই সেঞ্চুরির ইতিহাস স্যামসনের; তবুও শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে শেষ বলে হারল রাজস্থান

আইপিএল

বোলারদের যা তাই পারফরম্যান্সে অধিনায়কত্বের অভিষেক ম্যাচে ফিল্ডিংয়ে নেমে যেন অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসনের অসহায় মুখটাই বার বার ভেসে উঠছিল পর্দায়। তবে এতে দমে যাননি স্যামসন। বরং ব্যাট হাতে নেমে হয়ে উঠলেন আরো শক্তিশালী। লোকেশ রাহুলের পাঞ্জাব কিংসের বোলারদের পিটিয়ে তুলে নিলেন সেঞ্চুরি। সেই সাথে রান পাহাড় টপকে জয় দিকেই ছুটছিলেন, কিন্তু পুরো ইনিংস দাপটের সাথে খেলেও ইনিংসের শেষ বলে হার মানতে হলো তাকে। আর এতেই অধিনায়কত্বের অভিষেকেই সেঞ্চুরির ইতিহাস গড়েও হার দিয়ে যাত্রা শুরু হলো অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসনের।


মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করতে নেমে ৬ উইকেটে ২২১ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করায় পাঞ্জাব কিংস। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেটে ২১৭ রান তুলতে সক্ষম হয় রাজস্থান। শেষ বলে জিততে পাঁচ রানের প্রয়োজন হলে বাউন্ডারি লাইনে ক্যাচ আউট হয়ে ১১৯ রান করেও এক বলের কাছে হার নিয়ে ফিরতে হয় স্যামসনকে।

রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই স্টোকস-বাটলারকে হারিয়ে বিপদে পড়ে রাজস্থান। অধিনায়ক স্যামসনও ফিরতে পারতেন বাটলারের ফেরার ওভারেই। কিন্তু লোকেশ রাহুলের ক্যাচ মিসে পেয়ে যান জীবন। তাতেই বাজিমাত করেন রাজস্থান অধিনায়ক। ৩৩ বলে তুলে নেন ফিফটি।

এরপর রিয়ান পরাগ স্যামসনকে ভালো সঙ্গ দেন। তার ১১ বলে ২৫ রানের ইনিংসে অনেকটা এগিয়ে যায় রাজস্থান। তার বিদায়ের পর একাই লড়ে যান স্যামসন। অসাধারণ ব্যাটিং করে ৫৪ বলে অধিনায়কত্বের অভিষেকেই তুলে নেন আইপিএলে তৃতীয় সেঞ্চুরি।

তবে শেষ পর্যন্ত দলকে জেতাতে ব্যর্থ হন স্যামসন। শেষ ওভারে জিততে ১৩ রান প্রয়োজন হলে কেবল ৮ রান নিতে সমর্থ হয় রাজস্থান। শেষ তিন বলে ১১ রান প্রয়োজন পড়লে চতুর্থ বলটিকে ছক্কা হাঁকালেও পঞ্চম বলে কোন রান নিতে পারেননি স্যামসন। শেষ বলটি উড়িয়ে মারলে বাউন্ডারি লাইনে ক্যাচ হয়ে ফিরতে হয় তাকে। ফেরার আগে ৬৩ বলে ১২ বাউন্ডারি ও ৭ ছক্কায় ১১৯ রান করেন স্যামসন।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে অধিনায়ক লোকেশ রাহুলের ৫০ বলে ৯১, দীপক হুদার ২৮ বলে ৬৪ ও গেইলের ২৮ বলে ৪০ রানে ভর করে ৬ উইকেট ২২১ রান তোলে পাঞ্জাব কিংস।

এদিন রাজস্থানের হয়ে অভিষেক ম্যাচ বল হাতে ৪ ওভারে ৪৫ রান দেন মোস্তাফিজ। পাননি কোন উইকেটের দেখা। যদিও উইকেট পাওয়ার বেশ কয়েকটি সুযোগ তৈরী হয়েছিল।


সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

পাঞ্জাব কিংস: ২০ ওভারে ২২১/৬(লোকেশ রাহুল ৯১, হুদা ৬৪; সাকারিয়া ৩/৩১, মরিস ২/৪১)

রাজস্থান রয়্যালস: ২০ ওভারে ২১৭/৭(স্যামসন ১১৯, পরাগ ২৫; আর্শদীপ ৩/৩৫, শামি ২/৩৩)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *