শোয়েবের মুখে এমন চপেটাঘাত যে আর কথায় বের হবে না!

আইপিএল

পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটারদের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কিংবা গণমাধ্যমে নিয়মিতই নানান সাক্ষাৎকার দিয়ে সবর থাকেন গতি তাকরা শোয়েব আখতার। যেখানে মূলত কথা বলেন পাকিস্তানের বর্তমান ক্রিকেট দল নিয়ে।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ধীরগতির ব্যাট করায় পাক অধিনায়ক বাবর আজমের সমালোচনা করেন শোয়েব। তবে তার জবাবটা ব্যাট হাতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়া সেঞ্চুরির মাধ্যমে রীতিমতো চপেটাঘাতের মতোই দিয়েছেন বর্তমানে ওয়ানডেতে নাম্বার ওয়ান এই ব্যাটসম্যান।

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে জয় পায়নি পাকিস্তান। সেদিন অন্য ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার ভিড়ে ৫০ বলে ৫০ রান করেছিলেন বাবর, পাকিস্তান পায় ১৪০ রানের সংগ্রহ। জবাবে মাত্র ১৪ ওভারেই ম্যাচ জিতে নেয় স্বাগতিকরা।

সেদিন ম্যাচ হারায় বাবরের সমালোচনা করতে ছাড়েননি শোয়েব। টি-টোয়েন্টির মহাতারকা ক্রিস গেইল, সময়ের অন্যতম সেরা বিরাট কোহলি কিংবা হালের এইডেন মারক্রামের উদাহরণ টেনে বাবরের টি-টোয়েন্টি সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন তোলেন রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেসখ্যাত এ পেসার।

পিটিভি স্পোর্টসে শোয়েব বলেছিলেন, ‘আমাদের ব্যাটসম্যানদের উচিত নিজেদের ব্যাটিং স্টাইল ও স্ট্রাইকরেট নিয়ে চিন্তা করা উচিত যে, এটি আদৌ টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের জন্য উপযুক্ত কি না। আপনি যদি ক্রিস গেইল, বিরাট কোহলি কিংবা এইডেন মারক্রামকে ৫০ বল দেন, তাহলে তারা কী করবে? আর বাবর কী করল?’

শোয়েবের এই প্রশ্নের জবাব দিতে মাত্র এক ম্যাচ সময় নিলেন বাবর। সিরিজের তৃতীয় ম্যাচেই তার ব্যাট থেকে এলো ৫৯ বলে ১৫ চার ও ৪ ছয়ের মারে ১২২ রানের ম্যাচ জেতানো এক ঝলমলে ইনিংস। যেখানে মাত্র ৪৯ বলে সেঞ্চুরি পূরণ করেছিলেন বাবর।

স্বাভাবিকভাবেই ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছেন বাবর। ম্যাচ শেষে তিনি জানিয়েছেন দীর্ঘদিন ধরে অপেক্ষা করছিলেন এমন ইনিংসের। বাবার বলেন, ‘আমি দীর্ঘদিন ধরে এমন ইনিংসের অপেক্ষা করছিলাম। আমি এর জন্য পরিকল্পনা করে নেমেছি এবং মনে হয়েছিল যদি সুযোগ পাই তাহলে কাজে লাগাবো। আমি কৃতজ্ঞ যে আজ সেটি করতে পেরেছি।’

অধিনায়কের সেঞ্চুরিতে ভর করেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ২০৩ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করে রেকর্ডগড়া জয় পেয়েছে পাকিস্তান। উদ্বোধনী জুটিতে মোহাম্মদ রিজওয়ানের সঙ্গে রেকর্ড ১৯৭ রান যোগ করেছেন বাবর। যা পাকিস্তানের সর্বোচ্চ রানের উদ্বোধনী জুটি।

অথচ এই উদ্বোধনী জুটি নিয়েও কথা বলেছিলেন শোয়েব। প্রথম ম্যাচে ৫০ বলে ৭৪ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলে দলকে জিতিয়েছিলেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান রিজওয়ান। কিন্তু শোয়েব বলেছিলেন, যত ভালোই করুক না কেন, রিজওয়ানকে ওপেনিংয়ে রাখা যাবে না।

সেই রিজওয়ানই এবার বাবরের সঙ্গে রেকর্ড জুটি গড়ে পাকিস্তানকে এনে দিয়েছেন অবিশ্বাস্য এক জয়। পরপর দুই ম্যাচে অমূলক দুইটি মন্তব্য করে দুইটিরই কড়া জবাব পেয়েছেন শোয়েব।

কে জানে, হয়তো পরবর্তীতে এমন বেফাঁস মন্তব্য করার সাহস হয়তো পাবেন না অথবা করার আগে দ্বিতীয়বার অবশ্যই ভাববেন রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস।

আরো পড়ুনঃ- সাকিবের ‘চুল’ কেটে ভাইরাল নারাইন (ভিডিও)

এক নজরে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা সিরিজের চূড়ান্ত সময়সূচি…

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *