মুস্তাফিজদের ১০ উইকেটে উড়িয়ে দিয়ে কোহলিদের ‘চারে চার’ জয়

আইপিএল

জয়রথ ছুটছেই রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের। মোস্তাফিজের কাটার কিংবা স্লোয়ার কোনটাই জয় আটকাতে পারলোনা আরসিবির। নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে দেবদূত পাডিক্কেল অসাধারণ সেঞ্চুরিতে রাজস্থান রয়্যালসকে ১০ উইকেটে হারিয়ে চার ম্যাচে টানা চারটিতেই জয় তুলে নিল কোহলির দল।


আইপিএলের ১৬ তম ম্যাচে মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার আগে ব্যাট করতে নেমে ৯ উইকেটে ১৭৭ রান সংগ্রহ করে রাজস্থান। জবাবে ২১ বল আগেই ১০ উইকেটের জয় তুলে নেয় আরসিবি।

১৭৮ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ইনিংসের শুরু থেকেই হাত খুলতে শুরু করেন আরসিবি ওপেনার দেবদূত পাডিক্কেল। সাবলীলভাবে রাজস্থানের সব বোলারকে তুলে বাউন্ডারির বাইরে ফেলতে থাকে তরুণ তারকা। আইপিএলে নিজের প্রথম শতরানও চার মেরেই হাসিল করেন দেবদূত পাডিক্কেল।

অন্যদিকে ম্যাচে দুর্দান্ত হাফ সেঞ্চুরির পাশাপাশি বিশ্বের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে আইপিএলে ৬ হাজার রান পূর্ণ করেন বিরাট কোহলি। ম্যাচে ৪৬ বল খেলে ৭১ রানে অপরাজিত থাকেন আরসিবি অধিনায়ক। ৬টি চার ও ৩টি ছক্কা আসে তাঁর ব্যাট থেকে। ৫২ বলে ১০১ রান করেন দেবদূত পাডিক্কেল। ১১টি চার ও ৬টি ছক্কা আসে তাঁর ব্যাট থেকে।

এর আগে রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে টসে জিতে আগে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয় রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর।বিরাটের সিদ্ধান্তকে সঠিক বলে প্রমাণ করেন আরসিবি-র ফাস্ট বোলার মহম্মদ সিরাজ ও কাইল জেমিয়েসন। রাজস্থানের ব্রিটিশ ওপেনার জস বাটলারের উইকেট নেন সিরাজ। মাত্র ৮ রান করেন ডান হাতি ওপেনার। রাজস্থানের দ্বিতীয় ওপেনার মনন ভোরাকে (৭) ফিরিয়ে দেন জেমিয়েসন। ডেভিড মিলারের (০) উইকেট নিয়ে রাজস্থানকে প্রতিযোগিতা থেকে বেশ খানিকটা দূরে ঠেলে দেন মহম্মদ সিরাজ।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যাট চালাতে শুরু করেন রাজস্থানের অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসন। দুটি চার ও একটি ছক্কা সহযোগে তিনি ১৭ বলে ২১ রানে পৌঁছে যান। ১৮তম বলে ওয়াশিংটন সু্ন্দরের শিকার হন রাজস্থানের অধিনায়ক। গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের হাতে সহজ ক্যাচ তুলে দিয়ে সাজঘরে ফেরেন সঞ্জু। তাতে আরও খানিকটা পিছিয়ে যায় জয়পুরের দল।

তবে ঠিক সেখান থেকেই ম্যাচে ফেরার লড়াইও শুরু করে দেয় রাজস্থান রয়্যালস। শিবম দুবে ও রিয়ান পরাগের লড়াকু অর্ধশতরান পার্টনারশিপের সৌজন্যে ম্যাচ তুল্যমূল্য লড়াইয়ের দিকে খানিকটা এগোয় গোলাপী শিবির। কিন্তু রিয়ান পরাগ আউট হওয়ার পর আবার চাপে পড়ে যায় রাজস্থান। ১৬ বলে ২৫ রান করেন অসমের এই তরুণ ব্যাটসম্যান। চারটি চার আসে তাঁর ব্যাট থেকে।

রাজস্থানের জার্সিতে সাত নম্বরে ব্যাট করতে নামা রাহুল তেওয়াটিয়া পরপর ছক্কা ও চার হাঁকিয়ে নিজের খাতা খোলেন। ৩২ বলে ৪৬ রান করে আউট হন শিবম দুবে। পাঁচটি চার ও দুটি ছক্কা আসে তাঁর ব্যাট থেকে। ২৩ বলে ৪০ রান করেছেন রাহুল তেওয়াটিয়া। চারটি চার ও দুটি ছক্কা আসে তাঁর ব্যাট থেকে।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

রাজস্থান রয়্যালস: ২০ ওভারে ১৭৭/৯(ডুবে ৪৬, তেওয়াটিয়া ৪০; সিরাজ ৩/২৭, প্যাটেল ৩/৪৭)

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর: ১৬.৩ ওভারে ১৮১/০(পাডিক্কেল ১০১*, কোহলি ৭২*; মোস্তাফিজ ০/৩৪, সাকারিয়া ০/৩৫)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *