ফ্রি কিকে ‘টপ’; পেনাল্টিতে ‘ফ্লপ’ মেসি!

ফুটবল

বর্তমান সময়ে লিওনেল মেসির কাছে পেনাল্টির চেয়ে ফ্রি কিকে গোল করায় যেন সহজতম একটি কাজে পরিণত হয়েছে। ১২ গজ দূরত্বে গোলরক্ষককে একা পাওয়ার চেয়ে প্রতিপক্ষের বেশ কয়েকজনকে সামনে দাঁড় করিয়ে গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে গোল করাতেই যেন বেশি আগ্রহী এখন বিশ্বসেরা এই সুপারস্টার।

গতকালই যেমন গুরুত্বপূর্ণ লিগ ম্যাচে ভ্যালেন্সিয়ার ঘরের মাঠ মেস্টায়ায় মাঠে নামে মেসিবাহিনী। শিরোপা জয়ের আশা বাঁচিয়ে রাখতে এই ম্যাচে জয়ের বিকল্প কিছুই ছিলো না কাতালান দলটির সামনে।

গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচেই কিনা দল এক গোলে পিছিয়ে থাকা অবস্থায় পেনাল্টি থেকে গোল করতে ব্যর্থ হন মেসি। বার্সেলোনা অধিনায়কের দুর্বল স্পট কিক প্রথমে রুখে দিয়েছিলেন ভ্যালেন্সিয়ার ডাচ গোলরক্ষক ইয়াসপের সিলেসেন। আলগা বল পেয়ে পেদ্রির নেওয়া শট গোললাইনে প্রতিহত হয়। এরপরও বল ক্লিয়ার হয়নি, ফাঁকায় বল পেয়ে জোরালো শটে স্কোরলাইন ১-১ করেন মেসি।

এরপর আরও একবার নিজের পেনাল্টি মিসের প্রায়শ্চিত্ত করেন এই ক্ষুদে জাদুকর। এবার ফ্রি কিকে নজরকাড়া গোলে দলকে জয়ের পথে নিয়ে যান এই সুপারস্টার। প্রায় ২০ গজ দূর থেকে তার বাঁকানো শটে বল কাছের পোস্টের ভেতরের দিকে লেগে জালে জড়ায়।

এই ফ্রি–কিক গোল নিয়ে মৌসুমে মেসির গোলসংখ্যা দাঁড়ালো ২৮ এ। গত রাতে ছাড়াও এই মৌসুমে গ্রানাডা ও অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের বিপক্ষে ফ্রি-কিক থেকে গোল করেছেন মেসি।

ফ্রি-কিকের রেকর্ডটা যত গৌরবের, পেনাল্টিরটা ততই অস্বস্তির। এই মৌসুমে মেসি পেনাল্টি মিস করেছেন তিনবার। যার দুবারই এই ভ্যালেন্সিয়ার বিপক্ষে, লিগ ম্যাচে। বাকি পেনাল্টি মিস করেছেন পিএসজির বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগের দ্বিতীয় রাউন্ডে।

তবে পেনাল্টি নিয়ে শুধু মেসিই নন, চিন্তায় আছে বার্সেলোনাও। চলতি মৌসুমে পাওয়া ১৭ পেনাল্টির মধ্যে বার্সার খেলোয়াড়েরা গোল করতে পেরেছেন দশটায়, মিস করেছেন সাতটায়। মৌসুমের এই গুরুত্বপূর্ণ সময়ে এসে যেখানে ১ পয়েন্টও নির্ধারণ করে দিতে পারে শিরোপার গতিপথ; ঠিক এমন সময় পেনাল্টি মিস করাটা বার্সার জন্য বড় ধরনের হতাশায় বয়ে আনতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *