৭ তারিখের আগে মাঠে গড়াবেনা আইপিএল; পেছাবে ফাইনাল!

আইপিএল

করোনার ভয়াল থাবা পড়েছে আইপিএলে। যেকারণে ম্যাচ আয়োজন করা নিয়েই তীব্র ডামাডোল শুরু হয়েছে। তবে টুর্নামেন্ট বন্ধ না করে বিকল্প ভাবনা ভাবতে শুরু করেছে বিসিসিআই। মুম্বাইতেই আইপিএলের সব ম্যাচ স্থানান্তরিত করার চিন্তাভাবনা করছে তারা। যাতে অন্তত ক্রিকেটারদের এক জায়গা থেকে আর এক জায়গায় উড়ে যাওয়ার দরকার না পড়ে। সেই সাথে ৬ তারিখ পর্যন্ত সব ম্যাচ স্থগিত করার কথাও জানিয়েছে ভারতের বেশ কয়েকটি গণমাধ্যম।


করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের দুই ক্রিকেটার। যার জেরে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে কলকাতার ম্যাচটি বাতিল করতে হয়েছে। চেন্নাই সুপার কিংস শিবিরেও করোনা হানা দিয়েছে। এমন কী দিল্লি অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামের মাঠকর্মীরাও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এই পরিস্থিতিতে একই জায়গায় আটটি টিমকে নিয়ে এসে খেলাগুলি করার চেষ্টা চালাচ্ছে বিসিসিআই। মুম্বাইয়ে তিনটি স্টেডিয়াম রয়েছে। স্বভাবতই ওয়াংখেড়ে, ব্র্যাবোর্ন এবং ডিওয়াই পাটিল স্টেডিয়ামে ম্যাচগুলি করার ভাবনাচিন্তা করছে বিসিসিআই। তবে এর জন্যও অনেক সমস্যা রয়েছে।

নতুন করে আটটি টিমের জন্য জৈব সুরক্ষা বলয় তৈরি করা। হোটেলের ব্যবস্থা করা। সেই সঙ্গে নতুন ক্রীড়াসূচি তৈরি করা। সম্ভবত আইপিএলের ফাইনালও পিছিয়ে যাচ্ছে। ৩০মে-এর জায়গায় ফাইনাল হতে পারে জুন মাসের শুরুতে।

আইপিএলে পরের পর্বে ম্যাচগুলি হওয়ার কথা ছিল কলকাতা এবং বেঙ্গালুরুতে। কিন্তু এই সংক্রমণের মাঝে প্লেয়ারদের এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাতায়াত করাটাও সমস্যার হয়ে দাঁড়িয়েছে। ক্রিকেটারদের সুরক্ষার কথা ভেবেই একই শহরে সব টিমকে রাখার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

মুম্বাইয়ে করোনা পরিস্থিতি আগের চেয়ে অনেকটাই ভাল। যেকারণে ঝুকি থাকা সত্তেও এর মাঝেই অবশ্য আইপিএলের প্রথম পর্বের ম্যাচ হয়েছে। তাই এখানেই আইপিএলে বাকি ম্যাচগুলি করার ভাবনাচিন্তা করছে বিসিসিআই।

উল্লেখ্য, মুম্বাইয়ে আইপিএল করার জন্য সেখানের হোটেলে খোঁজখবর নেওয়াও শুরু করে দিয়েছে বোর্ড। একই দিনে দুটো করে খেলাও হতে পারে বলে জানা গিয়েছে। তবে একই দিনে দুটো করে খেলা হলে সম্প্রচারকারী চ্যানেল তা মেনে নেবে কি না জানা যায়নি। বোর্ড চাইছে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আইপিএল শেষ করতে।

প্রসঙ্গত, সোমবার মুম্বইয়ে ২৬৬২ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। ১৭ মার্চের পর যা সব থেকে কম। এক মাস আগেও এই আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজারের ওপরে ঘোরাফেরা করছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *