দেশে ফেরার পথ বন্ধ; দ্বীপে আশ্রয় নিবেন ওয়ার্নার-স্মিথরা!

আইপিএল

আইপিএল খেলতে এসে তীব্র সমস্যায় পড়েছেন অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটার, কোচ, ম্যাচ অফিসিয়ালস, ধারাভাষ্যকররা। এই মুহূর্তে দেশে ফেরার ব্যাপারে তাঁদের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। জোর করে দেশে ঢুকতে গেলেই বড় অঙ্কের জরিমানার সঙ্গে জেলও হতে পারে তাঁদের।

ভারতে করোনার সংক্রমণ মারাত্মক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। যার জেরে ভারতের সঙ্গে ১৫ মে পর্যন্ত বিমান চলাচল বন্ধ রেখেছে অস্ট্রেলিয়া। এই পরিস্থিতিতে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা তাঁদের দেশে ফেরানোর জন্য অনুরোধ জানিয়েছিল। কিন্তু তাঁদের স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেওয়া হয়, এই মুহূর্তে কোনও ভাবেই তাঁদের দেশে ফেরানো হবে না। এমন কী হাত তুলে নিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া এবং অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটারস অ্যাসোসিয়েশন।

মঙ্গলবার আইপিএল বাতিল হওয়ার পর বিসিসিআই যখন প্লেয়ার এবং আইপিএলে যুক্ত প্রত্যেককে বাড়ি ফেরানোর উদ্যোগ নিচ্ছে, সে সময় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া এবং অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটারস অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে যৌথ বিবৃতিতে জানানো হয়, ‘যাঁরা ২০২১ আইপিএলে অংশ নিয়েছিলেন, তঁদের সুরক্ষার কথা ভেবেই যে বিসিসিআই এই টুর্নামেন্ট স্থগিত করেছে, সেটা বুঝতে পারছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া এবং অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটারস অ্যাসোসিয়েশন। সিএ ইতিমধ্যেই বিসিসিআই-এর সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করেছে। অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটার, কোচ, ম্যাচ অফিসিয়াল এবং ধারাভাষ্যকরদের সুরক্ষিত ভাবে অস্ট্রেলিয়ার ফেরৎ পাঠানোর প্রচেষ্টা করছে বিসিসিআই, সেই বিষয়ে কথা হয়েছে। সিএ এবং এসিএ অস্ট্রেলিয়া সরকারের ১৫ মে পর্যন্ত ভারতের সঙ্গে বিমান যোগাযোগ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তকে সম্মান করে। এবং (আইপিএল অংশ গ্রহণকারী সদসদ্যের জন্য) এই নিষেধাজ্ঞা ভেঙে কোনও ছাড় চাওয়া হবে না। বিসিসিআই আইপিএলের সব ক্রিকেটারদের যে ভাবে দেশে ফেরানোর দায়িত্ব নিয়েছে, তার জন্য সিএ এবং এসিএ ধন্যবাদ জানাচ্ছে।’

এর থেকেই পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে, অস্ট্রেলিয়ানদের দেশে ফেরা এখন অসম্ভব। কবে তাঁরা দেশে ফিরবেন, সে বিষয়েও কোনও নিশ্চয়তা নেই। ১৫ মে পর্যন্ত ভারতের সঙ্গে যাবতীয় বিমান যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। পরিস্থিতি বুঝে এই সময়সূচি আরও বাড়াতে পারে অস্ট্রেলিয়া সরকার। এমন পরিস্থতিতে ভারত ছাড়তে মালদ্বীপে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা আশ্রয় নিতে পারে বলে জানিয়েছে ইএসপিএন ক্রিকইনফো।

কেননা, আইপিএলে দায়িত্ব পালন করা অস্ট্রেলিয়ান ধারাভাষ্যকার মাইকেল স্ল্যাটার ইতিমধ্যে মালদ্বীপে পারি জমিয়েছেন। তার পথ ধরেই বাকিরাও সেখানে পৌঁছে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন বলে জানিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার কয়েকটি গণমাধ্যম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *