তাসকিনের বদলে যাওয়ার গল্প শোনালেন গিবসন

বাংলাদেশ ক্রিকেট

শ্রীলঙ্কায় টেস্ট হারলেও বাংলাদেশের কিছু ইতিবাচক অর্জনের কথা বলেছিলেন অধিনায়ক মমিনুল হক। যার মধ্যে মোটা দাগে উল্লেখ করেছিলেন পেসার তাসকিনকের নতুন ভাবে পাওয়ার কথা। কেনই বা বলবেন না, একজন ভালো পেসারের খোঁজে যে কতদিন অপেক্ষায় করেছে বাংলাদেশ সেটা বুঝা যায় যখন ১৬ বছর পর কোন বাংলাদেশী পেসার হিসেবে লঙ্কানদের বিপক্ষে ৪ উইকেট নেন তাসকিন।


লঙ্কানদের বিপক্ষে দুই টেস্টে তাসকিনের উইকেট সংখ্যা ৮। যদিও এই সংখ্যা দিয়ে তাসকিনকে বিচার করা সম্ভব হবেনা। কেনা ক্যাচ মিস না হলে উইকেট সংখ্যা হতে পারতো দশেরও বেশি। আর বোলিংয়ে সুইং, লাইন, লেন্হ ও গতির উপর তাসকিনের যে নিয়ন্ত্রণ সেটাও চোখে পড়ার মতো। তাসকিনের এই অবিশ্বাস্য পরিবর্তনে পেছনে অবশ্য তার কঠোর পরিশ্রম আর টেকনিককেই মনে করছেন পেস বোলিং কোচ ওটিস গিবস। সম্প্রতি ডেইলি স্টারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তাসকিনের পরিবর্তনের গল্প শোনান এই ক্যারিবিয়ান কোচম

গিবসন বলেন, ‘নিশ্চিতভাবেই তার ফিটনেসের নতুন মাত্রার জন্য (এমন উন্নতি হয়েছে)। ফিটনেস নিয়ে সে অনেক পরিশ্রম করেছে। ফিটনেসে উন্নতি করায় গতি বেড়েছে, ছন্দ এসেছে। এর কারণে টেকনিক্যাল দিক নিয়ে কাজ করাও তার পক্ষে সম্ভব হয়েছে। সে পরামর্শগুলো খুব ভালোভাবে নিজের ভেতরে নিয়েছে। যা তাকে টেস্টে ম্যাচে মানসম্মত বোলারে পরিণত করেছে।’

টেকনিক্যাল কোন দিকটা নিয়ে কাজ করেছেন এ বিস্তারিত জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা তার রানআপ নিয়ে অনেক লম্বা সময় ধরে কাজ করেছি। এমনকি নিউজিল্যান্ড সফরের আগে ঘন ঘন নো বল (ওভারস্টেপিংয়ে) করার তার একটা প্রবণতা ছিল। তার রানআপটা আরও সহজ করে দিয়েছি। দেখবেন শ্রীলঙ্কায় সে দুই টেস্টে প্রায় ৭০ ওভার (৬৮ ওভার) বল করেছে, একটাও নো বল করেনি।’

‘আপনি যদি স্বস্তি দায়ক (কমফোর্টেবল) একটা রানআপ আত্মস্থ করতে পারেন তাহলে বোলিংয়ে অন্য সব কিছুও সহজ হয়ে যায়। এই কারণে দেখবেন তার লাইন-লেন্থেও খুব ভাল ছিল। পাশাপাশি সে এখন কিছুটা স্যুয়িং করাতে পারছে। সব মিলিয়ে তার উন্নতিতে আমি খুবই মুগ্ধ’– যোগ করেন গিবসন।

তাসকিন তিন ফরম্যাটেই নিজেকে মেলে ধরতে পারবেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে গিবসন বলেন, ‘বর্তমান ছন্দ থাকলে সে সব সংস্করণেই সেরা পারফর্ম করতে পারবে। তবে এটা বলা কঠিন যে একজন বোলার টানা তিন সংস্করণে খেললে কি হবে। আমাদের এখানে ম্যানেজ করতে হবে। বুঝতে হবে কাকে কখন কোথায় খেলাতে হবে, কখন বিশ্রাম দিতে হবে। এই ব্যাপারে আমাদের সতর্ক থাকা দরকার।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *