তপ্ত রোদের মাঝে মাহমুদউল্লাহ-ইমরুলদের ব্যাটে ঝড়

বাংলাদেশ ক্রিকেট

থ্রোয়ারের করা বলে একটি দৃষ্টিনন্দন সুইপ শটের পরেই মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ স্কয়ার লেগে খেললেন জোরালো শট। তপ্ত রোদের মধ্যে শের-ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সেন্ট্রাল উইকেটের নেটে দেখা যায় এমন দৃশ্য। তবে শুধু মাহমুদউল্লাহ একাই নন; তার পাশের উইকেটে মাহমুদুল্লাহর মতো ঝড় তুলেছেন ইমরুল কায়েস-সৌম্য সরকাররা।

ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজকে কেন্দ্র করে শুক্রবার ষষ্ঠ দিনের মতো অনুশীলনে নিজেদের ঝালিয়ে নেন মাহমুদউল্লাহরা। ২ মে থেকে শুরু হওয়া এই অনুশীলনে আছেন শুধু ১৩ জন।

শ্রীলঙ্কা সিরিজ থেকে ফিরে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকায় এখনো অনুশীলনে ফিরতে পারেননি তামিম ইকবাল-মুশফিকুর রহিমরা। তাদের আজ যোগদানের কথা থাকলেও কোয়ারেন্টাইন জটিলতায় তারা শেষ পর্যন্ত আসেননি।

ছিলেন না সাকিব আল হাসান ও মোস্তাফিজুর রহমান। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) খেলে ভারত থেকে ফেরায় তারা আছেন বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে।

আজকের অনুশীলনে চলে মাহমুদউল্লাহ-ইমরুলদের পাওয়ার হিটিং। শের-ই বাংলার সেন্ট্রাল উইকেটের দুটি নেটে ভাগ হয়ে ব্যাটিং করেন মাহমুদউল্লাহ, দীর্ঘদিন পর ওয়ানডে দলে ফেরা ইমরুল কায়েস, মোসাদ্দেক হোসেন।

একটি উইকেটে একাই ঘণ্টাখানেক ব্যাটিং করেন মাহমুদউল্লাহ। এর আগে ১৫ মিনিটের মতো করেন রানিং। তাকে এক নাগাড়ে বল করে গেছেন থ্রোয়াররা। কিছুক্ষণ ছিলেন স্পিনার শেখ মাহেদী। এদিন রক্ষণাত্মক ভঙ্গিতে অনুশীলন না করে হাত খুলে পাওয়ার হিট করে গেছেন।

আরেকটি উইকেটে একসঙ্গে ব্যাটিংয়ে নামেন দুই বাঁহাতি ইমরুল-সৌম্য। মাহমুদউল্লাহ মতো এই দুজনও করে গেছেন পাওয়ার হিট। স্ট্রাইক রোটেট করে তারা দুজনের ব্যাটিং করেছেন। তারা এক সঙ্গে সামলেছেন স্পিন ও পেস। স্পিন করেছেন শেখ মাহাদী ও পেস করেছেন সাইফউদ্দিন। এ ছাড়া খেলেছেন থ্রোয়ারদের বিরুদ্ধেও।

এর পরেই ব্যাটিংয়ে আসেন মোসাদ্দেক। নিউ জিল্যান্ড সফরে ইনজুরির কারণে খেলতে পারেননি। এবার সম্পূর্ণ সুস্থ হয়েই লঙ্কানদের বিপক্ষে নামছেন। শুরুতে কিছুক্ষণ রক্ষণাত্মক খেলে এরপর হাত খুলেন মোসাদ্দেক। এরপর সতীর্থদের মতো তিনিও ঝড় তোলেন।

দুয়েক দিনের মধ্যেই তামিম-মুশফিকরা ফিরতে পারেন অনুশীলনে। তাহলে শুরু হবে সাকিব-মোস্তাফিজ বিহীন বাকি স্কোয়াডের অনুশীলন। সাকিবদের ঈদের আগে ফেরার সম্ভাবনা নেই।

উল্লেখ্য, তিন ম্যাচের এই ওয়ানডে সিরিজ খেলতে শ্রীলঙ্কার ঢাকায় আসার কথা রয়েছে ১৬ মে। সিরিজ শুরু হবে ২৩ মে। মাঝে ২৫ মে দ্বিতীয় ওয়ানডের পর সিরিজের শেষ ম্যাচ হবে ২৮ মে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *