ডাবল সেঞ্চুরিতে আবিদের ইতিহাস; নোমান আলীর আক্ষেপেও রেকর্ড

ক্রিকেট

দুই ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় এবং শেষ টেস্টে হারেরেতে আবারো ইনিংস হারের শঙ্কায় পড়েছে জিম্বাবুয়ে। দ্বিতীয় দিন শেষে তাদের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৫২ রান। পাকিস্তানের চেয়ে প্রথম ইনিংসে এখনও ৪৫৮ রানে পিছিয়ে আছে স্বাগতিকরা। আবিদ আলির রেকর্ড গড়া ডাবল সেঞ্চুরি ও নোমান আলীর ৯৭ রানে এর আগে ৮ উইকেটে ৫১০ রান নিয়ে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছিল সফরকারীরা।


ম্যাচের প্রথম দিনেই আজহার আলী ও আবিদ আলীর সেঞ্চুরিতে রান পাহাড়ের দিকে ছুটছিল পাকিস্তান। দ্বিতীয় দিনে শুরুটা ভাল হয়নি বাবর আজমের দলের। ব্যাটিংয়ে এসে প্রথম দিনের ২৬৮ রানের সাথে আজ আর ৭৩ রান যোগ করতেই আরও ৩ উইকেট হারিয়ে বসেছিল সফরকারীরা। তবে অষ্টম উইকেটে নোমান আলীকে সাথে নিয়ে আবারও ১৬৯ রানের বড় পার্টনারশিপ গড়েন আবিদ আলী।

শেষ পর্যন্ত ৪০৭ বল মোকাবিলায় ২১৫* রানের দূর্দান্ত ইনিংস খেলে অপরাজিত ছিলেন আবিদ আলী, যেখানে ২৯টি চার হাঁকিয়েছেন তিনি। এই ইনিংসে জিম্বাবুয়ের মাটিতে পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েন এই ব্যাটসম্যান।

এদিকে পাকিস্তান ওপেনার ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির স্বাদ পেলেও মাত্র ৩ রানের জন্য প্রথম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি ছোঁয়া হয়নি নোমান আলীর। ১০৪ বলে ৯৭ রান করে টেন্ডাই চিসোরোর বলে স্ট্যাম্পিং আউট হয়েছেন তিনি। যদিও এতেও রেকর্ড গড়েছেন তিনি। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে কোন শতক ছাড়া টেস্টে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড এটি। এর আগে এই রেকর্ড ছিল ইংলিশ ক্রিকেটার জ্যাক লিচের। নাইটওয়াচম্যান হিসেবে নেমে ৯২ রান করেছিলেন তিনি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর(দ্বিতীয় দিন শেষে)
পাকিস্তানঃ ৫১০/৮ ডিক্লেয়ার (১৪৭.১ ওভার); আবিদ ২১৫*, আজাহার ১২৬, নওমান ৯৭; মুজারাবানি ৩/৮২, চিসোরো ২/১৩১

জিম্বাবুয়েঃ ৫২/৪ (৩০ ওভার); চাকাভা ২৮*, টেইলর ৯, কাউসুজা ৪; হাসান ১/৭, শাহিন ১/১৬

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *