মাহমুদউল্লাহকে বিসিবি সভাপতির ফোন

বাংলাদেশ ক্রিকেট

গুঞ্জন উঠেছে টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন টাইগার টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এই টেস্ট সিরিজ শেষেই না কি অফিসিয়াল ঘোষণা দিতে পারেন তিনি! সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই খবর ছড়িয়ে যাবার পরই মাহমুদউল্লাহকে ফোন করেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।


একটি সুত্র বলছে, মাহমুদউল্লাহকে কল দিয়ে নিজের অবসরের সিদ্ধান্ত পুনরায় বিবেচনা করার জন্য বলেছেন বিসিবি সভাপতি। তবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এখনো সিদ্ধান্ত কি নিবেন সেটি জানাননি। ধারণা করা হচ্ছে নিজের সিদ্ধান্ত অনঢ় থেকে অবসরেই যেতে পারেন মাহমুদউল্লাহ।

টেস্ট থেকে আগে থেকেই উপেক্ষিত ছিলেন মাহমুদউল্লাহ। প্রত্যেক সিরিজের আগে আলোচনায় থাকতেন, কিন্তু স্কোয়াডে থাকতো না তার নাম। এবার জিম্বাবুয়ে সিরিজের দলে সুযোগ হয় তাও দল ঘোষণার পরে। তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমের চোট সমস্যার কারণে।

এরপরও নিজেকে ‘লাকি’ ভাবতে পারেন মাহমুদউল্লাহ। অন্তত সুযোগটা তো হলো। এই সুযোগটা অবশ্য দলে সুযোগ পাওয়ায় নয় অবসর ঘোষণার আনুষ্ঠানিকতা বলেই লাকি ভাববেন নিশ্চয়ই মাহমুদউল্লাহ। কেননা ভাগ্যজোরে পাওয়া সুযোগটা কেন হেলায় নষ্ট করবেন তিনি! তাইতো ১৬ মাস পর টেস্ট ক্রিকেটে ফেরার উপলক্ষটা রাঙিয়ে নিলেন তিনি ক্যারিয়ার ১৫০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে। আর সিদ্ধান্ত নিলেন অপরাজিত থেকেই বিদায় বলার।

যদিও এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে জানাননি মাহমুদউল্লাহ। তবে সুত্র বলছে, মাহমুদউল্লাহ এই সিরিজের পরই অবসরের সিদ্ধান্ত জানাবেন। মৌখিকভাবে অবসরের কথা জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে সবশেষ খেলেছিলেন টেস্ট ম্যাচ। এরপর আর নামা হয়নি টেস্ট জার্সিতে। খেলা তো দূরে থাক, স্কোয়াডেও জায়গা হচ্ছিল না এই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানের। তার মতো ক্রিকেটারের টেস্টে না থাকায় সমালোচনাও হয়েছে বেশ। তবে বিসিবির নির্বাচক কিংবা টিম ম্যানেজমেন্ট ‘বাতিলের খাতায়’ ফেলে দিয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহকে। সেই তিনিই এবার নিজেকে গুটিয়ে নিচ্ছেন নির্বাচকদের খাতা থেকেই।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এই টেস্ট ম্যাচটি মাহমুদউল্লাহর আরো একটি মাইলফলকের। কেননা এটি তার ক্যারিয়ারের ৫০ তম টেস্ট ম্যাচ। এখন পর্যন্ত ৯৪ ইনিংসে ২৯১৪ রান করেছেন মাহমুদউল্লাহ। যেখানে ৬ টি ফিফটি ও ৫ টি সেঞ্চুরি আছে৷ আর বল হাতে আছে ৪৩ উইকেট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *