রাজা তামিম তবে সবার উপরে আশরাফুল

ফিচার

দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলে যেমন ভালো কিছু অর্জন রয়েছেন তামিম-সাকিবদের তেমনি এই ম্যাচ খেলে ব্যর্থতার পাল্লাটও বেশ ভারি হয়েছে তাদের। বাংলাদেশের ক্রিকেট বলতে যেসব নাম সবার সামনে চোখে ভেসে আসে সেই সব ব্যাটসম্যানদের কিছু লজ্জার রেকর্ডেও নাম রয়েছে।

বাংলাদেশের হয়ে ব্যাট হাতে ৩ হাজার রানের গন্ডি পেরোনো তামিম, সাকিব,মুশফিক,মাহমুদউল্লাহ ও আশরাফুলদের একদিকে গর্ব হলেও সবচেয়ে বেশি ডট বল দেওয়ার রেকর্ডেও তাদের নামটা উঠে আসায় লজ্জার অর্জনটিও লেখা হচ্ছে তাদের নামেই। তবে এই রেকর্ডে সবার উপরে তামিম – আশরাফুল নিজেদের নামটা দেখে নিশ্চয়ই কিছুটা লজ্জিতই হবেন।

২০৫ ইনিংস ব্যাটিং করে ৭২০২ রান করেছেন তামিম। তার স্ট্রাইক রেট ৭৮.৬৮। ৯১৫৩ বল মোকাবেলা করে তার মাঝে তামিম ডট খেলেছেন ৫২৬০ টি। শতকরা ৫৭.৪৬ ভাগ বল ছিল ডট। তবে বলের দিক থেকে তামিম শীর্ষে হলেও শতকরায় তার চেয়ে বেশি হার একমাত্র মোহাম্মদ আশরাফুলের। ৩৪৬৮ রানের মালিক আশরাফুলের গড় তিন হাজার অতিক্রম করা পাঁচজনের মধ্যে সবচেয়ে কম। ২২.৩৭ গড় তার। ৪৯৪৬ বলের মধ্যে আশরাফুলের ডট বলের হার ৬০.৩৫।

৬১৭৪ রান করে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের মালিক মুশফিকুর রহিম। ৭৭৯৪ বলের মধ্যে মুশফিক খেলেছেন ৩৮৫০ ডট। প্রতি একশ’ বলে তার ডট ৫০.৬৭। মুশফিকের চেয়ে ডট খেলার বেশি প্রবণতা দেখা গিয়েছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের। ৫৩১১ বলের মধ্যে রিয়াদ রান নিতে পারেননি ২৮২৩ বলে। ৫৩১১ বলের মধ্যে ৫৩.১৫% বল ছিল ডট।

ডট বল খেলার হার ৫০-এর নিচে রেখেছেন একমাত্র সাকিব আল হাসান। প্রতিপক্ষ দলের ফিল্ডারদের সবচেয়ে বেশি ব্যস্ত রাখেন তিনি। বাংলাদেশের হয়ে ওয়ানডেতে তিন হাজারের বেশি রান করা  পাঁচজনের মধ্যে আশির ওপরে স্ট্রাইক রেট একমাত্র তার, গড়টাও সর্বোচ্চ।  ৮২.৭৫ স্ট্রাইক রেট আর ৩৭.৮৬ গড়ে সাকিব করেছেন ৬৩২৩ রান। ৭৬৪১ বলের মধ্যে ডটের সংখ্যাটা ৩৭২৭। শতকরা ৪৮.৭৭ টি বল ডট খেলেছেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *